Print Print

পরিবার ও সামাজিক স্বীকৃতির ছোবলে লজ্জাবতী ললনা

মোঃ মানিক হোসেন। **************** নিন্দা সমালোচনার ভয়ে কোন দূষণীয় কাজ করতে মানুষের মধ্যে যে জড়ত্ববোধ হয়ে থাকে সেটাকে বলে হায়া বা লজ্জা। এই লজ্জা মানুষকে ভাল কাজের পদক্ষপে গ্রহণ করতে এবং মন্দ কাজ থেকে বিরত থাকতে উদ্বুদ্ধ করে। যদিও বাস্তবে এই কথাগুলো বেমানান তারপরও এর প্রয়োগ কিছুটা আছে বলেই পৃথিবী এখনও ঠিকঠাক চলছে। তবে পরিমানে তা অতি নগন্য। আজ লজ্জাবতি রমনীর দেখা পেতে সিনামা বা নাটক দেখতে হয়, অবশ্য সব সিনামা বা নাটকে এটা পাওয়া যায়না। পরিমানটা এখানেও কিয়ং (অল্প)। পরিবার ও সামাজিক স্বীকৃতি আজ সমাজ থেকে নারীর লজ্জা উঠিয়ে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। সামাজিক স্বীকৃতি বলাতে অনেকে হয়তো অসন্তোষ হবেন। মাফ করবেন আপনাকে খুশি করতে হয়তো আমি ব্যর্থ হবো। আমার চিন্তা চেতনা হয়তো আপনার সাথে মিলবেনা। আসুন যুক্তিগুলো মিলিয়ে দেখি-

সামাজিক স্বীকৃতিঃ ১। বিজ্ঞাপনঃ মার্জিত পোষাকের ব্যবহার আছে কি? পন্যটি ছেলেদের ব্যবহার্য হলেও অর্ধনগ্ন নারীর উপস্থিতি থাকবেই। ২। মিস বাংলাদেশ, আইডল, ফ্যাশনশো, অনুষ্ঠান সহ বিভিন্ন উপস্থাপনাঃ মার্জিত পোষাকের ব্যবহার আছে কি? ৩। অফিসের পারসোনাল সেক্রেটারিঃ স্মার্ট, সুদর্শনা না হলে চলো কি? ৪। সেলস্ গার্ল (আধুনিক দোকানের বিক্রয় কর্মী) স্মার্ট, সুদর্শনা না হলে চলো কি? ৫। বিমান বালাঃ মনোরঞ্জনের জন্য নিয়োগপ্রাপ্ত সুদেহী, সৌম্যদর্শন হতেই হবে। উল্লেখিত অল্প কিছু উদাহরনে পরিবার বা সমাজ -মেয়েদের অমার্জিত (নির্লজ্জ) হতে বাধ্য করেছে তা নয় ★কিন্তু সমাজ এতে বাঁধা দিয়েছে কি ? ★নিশ্চুপ থাকা কি সম্মতির লক্ষন নয়? ★আজ আমাদের মা-বোন, স্ত্রী-কন্যা যেই বেশধারন করছেন তা কি বলে দেয়না তারা নির্লজ্জ? ★এক্ষেত্রে আপনি/আমি নিশ্চুপ কেন ? অথচ এই বাংলাদেশে আজ থেকে ৪০ বছর আগে বোরখা/হিজাবের ব্যবহার কম ছিল,মার্জিত পোষাকে নারীরা চলাফেরা করতো। টেলিভিশন, দোকানপাট, অফিস আদালত সবি ছিল সাথে লজ্জাবতী ললনাও ছিলো। কিন্তু এখন?

একজন পূরুষ হিসেবে আমি/আপনি আমরা কেউ কখনও চাইবোনা আমাদের পরিবারের নারী সদস্যরা কখনও আধুনিকতার নামে অমার্জিত পোষাক পরে চলাফেরা করুক অথচ সেই আমরাই চাই অমার্জিত পোষাক পরিহিত রমনী দেখতে, অবশ্য সেটা অন্যের পরিবারের নারী সদস্যদের। আজ আমি আপনার পরিবারকে দেখছি আপনি আমার পরিবারকে দেখছেন এভাবে সবাই জড়িয়ে পরছে এই নোংড়া জালে। অভ্যাসটা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে এখন নীজের পরিবারের নারী সদস্যদের ওভাবেই দেখতে অভ্যস্ত হয়ে গেছি। আজ আমাদের (পুরুষদের) মার্জিত পোষাকে নারী ভালো লাগেনা। এবার ছোট্ট একটা উদাহরন দিয়ে শেষ করবো – আগে একজন প্রাপ্ত বয়সের ছেলে একটি মেয়েকে স্পর্শ করলে দুজনের শরীরে একটা কম্পনের সৃষ্টি হতো। আর এখন জড়িয়ে ধরলেও কোনো অনুভুতি পাওয়া যায়কি? আমরা কোন পর্যায়ে পৌছে গেছি ভাবুন। ★পরিবার এবং সমাজ এ দায় কি এড়াতে পারবে ? যদি এই সমস্যা হতে না বের হওয়া যায তাহলে ক্রমাগত ধর্ষণ, হত্যা এসবের লাগাম টেনে ধরা অসম্ভব হবে। অনেকে বলবেন পোষাকের কারনে ধর্ষন হয়না এটা বিকৃত রুচির ব্যাপার, আমি আপনার সাথে একমত তবে পাশাপাশি পোশাকের ব্যাপারটা ফেলে দেবার মতো কারন নিশ্চই নয়। ঢেকে রাখা খাবারে মাছি কম পরে এটা অনিচ্ছায় হলেও স্বীকার করবেন নিশ্চই। ধন্যবাদ

ADs by sundarban PVC sundarban PVC Ads

ADs by Korotoa PVC Korotoa PVC Ads
ADs by Bank Asia Bank 

Asia Ads

নিচে মন্তব্য করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *