ঢাকা ১০:১৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
গৃহবধুকে ধর্ষনের পর হত্যা, ২ ঘাতক গ্রেপ্তার ঠাকুরগাঁওয়ে দ্বিতীয় ধাপে দু’টি উপজেলায় নতুন প্রার্থী বিজয়ী ঠাকুরগাঁওয়ে দ্বিতীয় ধাপে দু’টি উপজেলায় নতুন প্রার্থী বিজয়ী উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় সুকুমার রায়কে বিএনপি থেকে বহিষ্কার ঠাকুরগাঁও নারকোটিকস এর অভিযানে ভারতীয় টার্পেন্টাডল ট্যাবলেটের চালান ঠাকুরগাঁওয়ে নারকোটিকস’র অভিযানে মাদকের বড় চালান আটক পীরগঞ্জে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উপলক্ষে সভা অনুষ্ঠিত পীরগঞ্জে ৩০ পিস টার্পেন্টাডল সহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক পীরগঞ্জে ১৫০ গ্রাম শুকনো গাজা সহ ব্যবসায়ী আটক ঠাকুরগাঁওয়ে ঠিকাদারদের নিয়ে এলজিইডি’র দিনব্যাপী কর্মশালা

জোড়া তালি দিয়ে চলছে ঠাকুরগাঁও পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট!

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে ঠাকুরগাঁও পলিটেকনিক্যাল ইনস্টটিউিট। শিক্ষক ও আবাসন সংকটে নাকাল কারিগরি শিক্ষার এই প্রতিষ্ঠানটি। আবাসন ব্যবস্থার অভাবে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন শিক্ষক- শিক্ষাথীরা। থাকা-খাওয়ার সমস্যার জন্য প্রতিষ্ঠানটির নারী শিক্ষার্থীদের ভর্র্তির হার দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে । বর্তমানে পড়া-লেখা করা শিক্ষার্থীদের মধ্যে মাত্র ১০ শতাংশ ছাত্রী।

প্রতিষ্ঠানটির তথ্য মতে, ২০০৪ সালে ঠাকুরগাঁও বিসিক এলাকায় ২ একর জমির ওপর স্থাপন করা হয় কারিগরি এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। এখানে পাঁচটি টেকনোলজিতে ১১১ জন শিক্ষক পদের বিপরীতে শিক্ষক রয়েছেন মাত্র ৩৪জন। এর মধ্যে ৩ জন রয়েছে প্রেষণে। জমির অভাবে ল্যাবের আয়তন বাড়ানো যাচ্ছে না। ফলে এ প্রতিষ্ঠানটি তার লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হচ্ছে।

শিক্ষার্থীরা জানায়, শিক্ষক স্বল্পতার কারণে একজনকে প্রতিদিনি স্বাভাবকি ৫-টি ক্লাসের স্থলে দুই শিফটের দ্বিগুন ক্লাস নিতে হচ্ছে। এতে পাঠদানে শিক্ষকরা যেমন মনোযোগ রাখতে পারছেন না, তেমনি শিক্ষার্থীরা মানসম্পন্ন শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। সংকটরে কারণে অতিথি শিক্ষক দিয়ে দায়সারা পড়ালেখা চলছে এ প্রতিষ্ঠানে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ ইনস্টিটিউটে ৫টি টেকনোলজিতে প্রায় ৩ হাজার শিক্ষার্থী প্রকৌশল বিদ্যায় পড়াশোনা করছে। দুই একর জায়গায় প্রতিষ্ঠিত এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের আবাসন সুবিধা নেই। ফলে শহরের বাইরে থেকে আসা শিক্ষার্থীদের মেসে থেকে পড়াশোনা করতে হয়। এতে বাড়তি খরচসহ নিরাপত্তা নিয়ে ও নানা বিড়ম্বনায় পড়েন তারা।

উপেন চন্দ্র রায় বলেন, ‘এভাবেই ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ হয়ে গেলো। না পেলাম শিক্ষক, না পেলাম হল সুবিধা। আবাসন সুবিধা না থাকায় যাতায়াতে নানা সমস্যায় পড়তে হয়। আমাদের পরের ব্যাচের শিক্ষার্থীরা যেন এই সমস্যাগুলোর সম্মুখীন না হয়।’

একই কথা জানান আরেক শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, এখানে বেশির ভাগই শিক্ষক সদ্য পড়াশোনা শেষ করা ছাত্র কিংবা অন্য প্রতিষ্ঠানের । যাদের অনেকেই ল্যাবের মেশিনারি সম্পর্কে ভালো জ্ঞান নেই।

ঠাকুরগাঁও পলিটেকনিক্যাল ইনস্টটিউিটের চিফ ইনস্ট্রাক্টর সঞ্জয় বণিক জানান, এখানে শিক্ষক, র্কমচারী ও শিক্ষার্থীদের জন্য কোনো আবাসন ব্যবস্থা নেই। অধ্যক্ষের জন্য একটি বাসভবন আছে। ইনস্টটিউিটরে অধ্যক্ষ মাকসুদুর রহমান বলেন জোড়াতালি দিয়ে চলছে এই প্রতিষ্ঠানটি।

Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

গৃহবধুকে ধর্ষনের পর হত্যা, ২ ঘাতক গ্রেপ্তার

জোড়া তালি দিয়ে চলছে ঠাকুরগাঁও পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট!

আপডেট টাইম ০৫:১৯:৫৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে ঠাকুরগাঁও পলিটেকনিক্যাল ইনস্টটিউিট। শিক্ষক ও আবাসন সংকটে নাকাল কারিগরি শিক্ষার এই প্রতিষ্ঠানটি। আবাসন ব্যবস্থার অভাবে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন শিক্ষক- শিক্ষাথীরা। থাকা-খাওয়ার সমস্যার জন্য প্রতিষ্ঠানটির নারী শিক্ষার্থীদের ভর্র্তির হার দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে । বর্তমানে পড়া-লেখা করা শিক্ষার্থীদের মধ্যে মাত্র ১০ শতাংশ ছাত্রী।

প্রতিষ্ঠানটির তথ্য মতে, ২০০৪ সালে ঠাকুরগাঁও বিসিক এলাকায় ২ একর জমির ওপর স্থাপন করা হয় কারিগরি এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। এখানে পাঁচটি টেকনোলজিতে ১১১ জন শিক্ষক পদের বিপরীতে শিক্ষক রয়েছেন মাত্র ৩৪জন। এর মধ্যে ৩ জন রয়েছে প্রেষণে। জমির অভাবে ল্যাবের আয়তন বাড়ানো যাচ্ছে না। ফলে এ প্রতিষ্ঠানটি তার লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হচ্ছে।

শিক্ষার্থীরা জানায়, শিক্ষক স্বল্পতার কারণে একজনকে প্রতিদিনি স্বাভাবকি ৫-টি ক্লাসের স্থলে দুই শিফটের দ্বিগুন ক্লাস নিতে হচ্ছে। এতে পাঠদানে শিক্ষকরা যেমন মনোযোগ রাখতে পারছেন না, তেমনি শিক্ষার্থীরা মানসম্পন্ন শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। সংকটরে কারণে অতিথি শিক্ষক দিয়ে দায়সারা পড়ালেখা চলছে এ প্রতিষ্ঠানে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ ইনস্টিটিউটে ৫টি টেকনোলজিতে প্রায় ৩ হাজার শিক্ষার্থী প্রকৌশল বিদ্যায় পড়াশোনা করছে। দুই একর জায়গায় প্রতিষ্ঠিত এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের আবাসন সুবিধা নেই। ফলে শহরের বাইরে থেকে আসা শিক্ষার্থীদের মেসে থেকে পড়াশোনা করতে হয়। এতে বাড়তি খরচসহ নিরাপত্তা নিয়ে ও নানা বিড়ম্বনায় পড়েন তারা।

উপেন চন্দ্র রায় বলেন, ‘এভাবেই ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ হয়ে গেলো। না পেলাম শিক্ষক, না পেলাম হল সুবিধা। আবাসন সুবিধা না থাকায় যাতায়াতে নানা সমস্যায় পড়তে হয়। আমাদের পরের ব্যাচের শিক্ষার্থীরা যেন এই সমস্যাগুলোর সম্মুখীন না হয়।’

একই কথা জানান আরেক শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, এখানে বেশির ভাগই শিক্ষক সদ্য পড়াশোনা শেষ করা ছাত্র কিংবা অন্য প্রতিষ্ঠানের । যাদের অনেকেই ল্যাবের মেশিনারি সম্পর্কে ভালো জ্ঞান নেই।

ঠাকুরগাঁও পলিটেকনিক্যাল ইনস্টটিউিটের চিফ ইনস্ট্রাক্টর সঞ্জয় বণিক জানান, এখানে শিক্ষক, র্কমচারী ও শিক্ষার্থীদের জন্য কোনো আবাসন ব্যবস্থা নেই। অধ্যক্ষের জন্য একটি বাসভবন আছে। ইনস্টটিউিটরে অধ্যক্ষ মাকসুদুর রহমান বলেন জোড়াতালি দিয়ে চলছে এই প্রতিষ্ঠানটি।