ঢাকা ০৪:৫৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
শিক্ষার্থীরা বিপাকে, পীরগঞ্জে শতাধিক মাধ্যমিক স্কুলে শিক্ষকরা পাঠদানে হিমসিম খাচ্ছে পীরগঞ্জে ডায়াবেটিস সচেতনতা দিবস পালিত ঠাকুরগাঁয়ে বিজিবি’র উদ্দোগে আলোচনা ও মতবিনিময় সভা সাংবাদিক বিপ্লবের উপর হামলা মামলার আসামীরা গ্রেপ্তার হচ্ছেনা পীরগঞ্জে শহীদ জমিদার পরিবারের পক্ষে কুরানখানী ও মিলাদমাহফিল চাঞ্চল্যকর আকরাম হত্যা মামলা তদন্তে পুলিশের বানিজ্য-মামলা ভিন্নখাতে প্রবাহের চেষ্টা পীরগঞ্জে নিয়োগ বাণিজ্যের প্রতিবাদে মানববন্ধন হিমালয় সংলগ্ন জেলা ঠাকুরগাঁওয়ে নেই আবহাওয়া অফিস ঠাকুরগাঁওয়ে প্রাইমারীর ভাইভা পরীক্ষা দিতে গিয়ে ২ চাকরীপ্রার্থী আটক সহকারী শিক্ষক নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা দিতে এসে ধরা খেলেন চাকরিপ্রার্থী। 

পরিবার ও সামাজিক স্বীকৃতির ছোবলে লজ্জাবতী ললনা

মোঃ মানিক হোসেন। **************** নিন্দা সমালোচনার ভয়ে কোন দূষণীয় কাজ করতে মানুষের মধ্যে যে জড়ত্ববোধ হয়ে থাকে সেটাকে বলে হায়া বা লজ্জা। এই লজ্জা মানুষকে ভাল কাজের পদক্ষপে গ্রহণ করতে এবং মন্দ কাজ থেকে বিরত থাকতে উদ্বুদ্ধ করে। যদিও বাস্তবে এই কথাগুলো বেমানান তারপরও এর প্রয়োগ কিছুটা আছে বলেই পৃথিবী এখনও ঠিকঠাক চলছে। তবে পরিমানে তা অতি নগন্য। আজ লজ্জাবতি রমনীর দেখা পেতে সিনামা বা নাটক দেখতে হয়, অবশ্য সব সিনামা বা নাটকে এটা পাওয়া যায়না। পরিমানটা এখানেও কিয়ং (অল্প)। পরিবার ও সামাজিক স্বীকৃতি আজ সমাজ থেকে নারীর লজ্জা উঠিয়ে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। সামাজিক স্বীকৃতি বলাতে অনেকে হয়তো অসন্তোষ হবেন। মাফ করবেন আপনাকে খুশি করতে হয়তো আমি ব্যর্থ হবো। আমার চিন্তা চেতনা হয়তো আপনার সাথে মিলবেনা। আসুন যুক্তিগুলো মিলিয়ে দেখি-

সামাজিক স্বীকৃতিঃ ১। বিজ্ঞাপনঃ মার্জিত পোষাকের ব্যবহার আছে কি? পন্যটি ছেলেদের ব্যবহার্য হলেও অর্ধনগ্ন নারীর উপস্থিতি থাকবেই। ২। মিস বাংলাদেশ, আইডল, ফ্যাশনশো, অনুষ্ঠান সহ বিভিন্ন উপস্থাপনাঃ মার্জিত পোষাকের ব্যবহার আছে কি? ৩। অফিসের পারসোনাল সেক্রেটারিঃ স্মার্ট, সুদর্শনা না হলে চলো কি? ৪। সেলস্ গার্ল (আধুনিক দোকানের বিক্রয় কর্মী) স্মার্ট, সুদর্শনা না হলে চলো কি? ৫। বিমান বালাঃ মনোরঞ্জনের জন্য নিয়োগপ্রাপ্ত সুদেহী, সৌম্যদর্শন হতেই হবে। উল্লেখিত অল্প কিছু উদাহরনে পরিবার বা সমাজ -মেয়েদের অমার্জিত (নির্লজ্জ) হতে বাধ্য করেছে তা নয় ★কিন্তু সমাজ এতে বাঁধা দিয়েছে কি ? ★নিশ্চুপ থাকা কি সম্মতির লক্ষন নয়? ★আজ আমাদের মা-বোন, স্ত্রী-কন্যা যেই বেশধারন করছেন তা কি বলে দেয়না তারা নির্লজ্জ? ★এক্ষেত্রে আপনি/আমি নিশ্চুপ কেন ? অথচ এই বাংলাদেশে আজ থেকে ৪০ বছর আগে বোরখা/হিজাবের ব্যবহার কম ছিল,মার্জিত পোষাকে নারীরা চলাফেরা করতো। টেলিভিশন, দোকানপাট, অফিস আদালত সবি ছিল সাথে লজ্জাবতী ললনাও ছিলো। কিন্তু এখন?

একজন পূরুষ হিসেবে আমি/আপনি আমরা কেউ কখনও চাইবোনা আমাদের পরিবারের নারী সদস্যরা কখনও আধুনিকতার নামে অমার্জিত পোষাক পরে চলাফেরা করুক অথচ সেই আমরাই চাই অমার্জিত পোষাক পরিহিত রমনী দেখতে, অবশ্য সেটা অন্যের পরিবারের নারী সদস্যদের। আজ আমি আপনার পরিবারকে দেখছি আপনি আমার পরিবারকে দেখছেন এভাবে সবাই জড়িয়ে পরছে এই নোংড়া জালে। অভ্যাসটা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে এখন নীজের পরিবারের নারী সদস্যদের ওভাবেই দেখতে অভ্যস্ত হয়ে গেছি। আজ আমাদের (পুরুষদের) মার্জিত পোষাকে নারী ভালো লাগেনা। এবার ছোট্ট একটা উদাহরন দিয়ে শেষ করবো – আগে একজন প্রাপ্ত বয়সের ছেলে একটি মেয়েকে স্পর্শ করলে দুজনের শরীরে একটা কম্পনের সৃষ্টি হতো। আর এখন জড়িয়ে ধরলেও কোনো অনুভুতি পাওয়া যায়কি? আমরা কোন পর্যায়ে পৌছে গেছি ভাবুন। ★পরিবার এবং সমাজ এ দায় কি এড়াতে পারবে ? যদি এই সমস্যা হতে না বের হওয়া যায তাহলে ক্রমাগত ধর্ষণ, হত্যা এসবের লাগাম টেনে ধরা অসম্ভব হবে। অনেকে বলবেন পোষাকের কারনে ধর্ষন হয়না এটা বিকৃত রুচির ব্যাপার, আমি আপনার সাথে একমত তবে পাশাপাশি পোশাকের ব্যাপারটা ফেলে দেবার মতো কারন নিশ্চই নয়। ঢেকে রাখা খাবারে মাছি কম পরে এটা অনিচ্ছায় হলেও স্বীকার করবেন নিশ্চই। ধন্যবাদ

Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

শিক্ষার্থীরা বিপাকে, পীরগঞ্জে শতাধিক মাধ্যমিক স্কুলে শিক্ষকরা পাঠদানে হিমসিম খাচ্ছে

পরিবার ও সামাজিক স্বীকৃতির ছোবলে লজ্জাবতী ললনা

আপডেট টাইম ০১:১২:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ জানুয়ারী ২০২১

মোঃ মানিক হোসেন। **************** নিন্দা সমালোচনার ভয়ে কোন দূষণীয় কাজ করতে মানুষের মধ্যে যে জড়ত্ববোধ হয়ে থাকে সেটাকে বলে হায়া বা লজ্জা। এই লজ্জা মানুষকে ভাল কাজের পদক্ষপে গ্রহণ করতে এবং মন্দ কাজ থেকে বিরত থাকতে উদ্বুদ্ধ করে। যদিও বাস্তবে এই কথাগুলো বেমানান তারপরও এর প্রয়োগ কিছুটা আছে বলেই পৃথিবী এখনও ঠিকঠাক চলছে। তবে পরিমানে তা অতি নগন্য। আজ লজ্জাবতি রমনীর দেখা পেতে সিনামা বা নাটক দেখতে হয়, অবশ্য সব সিনামা বা নাটকে এটা পাওয়া যায়না। পরিমানটা এখানেও কিয়ং (অল্প)। পরিবার ও সামাজিক স্বীকৃতি আজ সমাজ থেকে নারীর লজ্জা উঠিয়ে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। সামাজিক স্বীকৃতি বলাতে অনেকে হয়তো অসন্তোষ হবেন। মাফ করবেন আপনাকে খুশি করতে হয়তো আমি ব্যর্থ হবো। আমার চিন্তা চেতনা হয়তো আপনার সাথে মিলবেনা। আসুন যুক্তিগুলো মিলিয়ে দেখি-

সামাজিক স্বীকৃতিঃ ১। বিজ্ঞাপনঃ মার্জিত পোষাকের ব্যবহার আছে কি? পন্যটি ছেলেদের ব্যবহার্য হলেও অর্ধনগ্ন নারীর উপস্থিতি থাকবেই। ২। মিস বাংলাদেশ, আইডল, ফ্যাশনশো, অনুষ্ঠান সহ বিভিন্ন উপস্থাপনাঃ মার্জিত পোষাকের ব্যবহার আছে কি? ৩। অফিসের পারসোনাল সেক্রেটারিঃ স্মার্ট, সুদর্শনা না হলে চলো কি? ৪। সেলস্ গার্ল (আধুনিক দোকানের বিক্রয় কর্মী) স্মার্ট, সুদর্শনা না হলে চলো কি? ৫। বিমান বালাঃ মনোরঞ্জনের জন্য নিয়োগপ্রাপ্ত সুদেহী, সৌম্যদর্শন হতেই হবে। উল্লেখিত অল্প কিছু উদাহরনে পরিবার বা সমাজ -মেয়েদের অমার্জিত (নির্লজ্জ) হতে বাধ্য করেছে তা নয় ★কিন্তু সমাজ এতে বাঁধা দিয়েছে কি ? ★নিশ্চুপ থাকা কি সম্মতির লক্ষন নয়? ★আজ আমাদের মা-বোন, স্ত্রী-কন্যা যেই বেশধারন করছেন তা কি বলে দেয়না তারা নির্লজ্জ? ★এক্ষেত্রে আপনি/আমি নিশ্চুপ কেন ? অথচ এই বাংলাদেশে আজ থেকে ৪০ বছর আগে বোরখা/হিজাবের ব্যবহার কম ছিল,মার্জিত পোষাকে নারীরা চলাফেরা করতো। টেলিভিশন, দোকানপাট, অফিস আদালত সবি ছিল সাথে লজ্জাবতী ললনাও ছিলো। কিন্তু এখন?

একজন পূরুষ হিসেবে আমি/আপনি আমরা কেউ কখনও চাইবোনা আমাদের পরিবারের নারী সদস্যরা কখনও আধুনিকতার নামে অমার্জিত পোষাক পরে চলাফেরা করুক অথচ সেই আমরাই চাই অমার্জিত পোষাক পরিহিত রমনী দেখতে, অবশ্য সেটা অন্যের পরিবারের নারী সদস্যদের। আজ আমি আপনার পরিবারকে দেখছি আপনি আমার পরিবারকে দেখছেন এভাবে সবাই জড়িয়ে পরছে এই নোংড়া জালে। অভ্যাসটা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে এখন নীজের পরিবারের নারী সদস্যদের ওভাবেই দেখতে অভ্যস্ত হয়ে গেছি। আজ আমাদের (পুরুষদের) মার্জিত পোষাকে নারী ভালো লাগেনা। এবার ছোট্ট একটা উদাহরন দিয়ে শেষ করবো – আগে একজন প্রাপ্ত বয়সের ছেলে একটি মেয়েকে স্পর্শ করলে দুজনের শরীরে একটা কম্পনের সৃষ্টি হতো। আর এখন জড়িয়ে ধরলেও কোনো অনুভুতি পাওয়া যায়কি? আমরা কোন পর্যায়ে পৌছে গেছি ভাবুন। ★পরিবার এবং সমাজ এ দায় কি এড়াতে পারবে ? যদি এই সমস্যা হতে না বের হওয়া যায তাহলে ক্রমাগত ধর্ষণ, হত্যা এসবের লাগাম টেনে ধরা অসম্ভব হবে। অনেকে বলবেন পোষাকের কারনে ধর্ষন হয়না এটা বিকৃত রুচির ব্যাপার, আমি আপনার সাথে একমত তবে পাশাপাশি পোশাকের ব্যাপারটা ফেলে দেবার মতো কারন নিশ্চই নয়। ঢেকে রাখা খাবারে মাছি কম পরে এটা অনিচ্ছায় হলেও স্বীকার করবেন নিশ্চই। ধন্যবাদ