ঢাকা ০৬:৫২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩১ মে ২০২৩, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সরকারী সমাজকর্মীর দ্বারা গৃহকর্মী নির্যাতিত

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় এক গৃহকর্মীকে মারপিট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে এক সরকারি চাকুরীজীবির বিরুদ্ধে। আহত গৃহকর্মী পারুল আক্তার (১৪) ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। সে ঠাকুরগাঁও শহরের টিকাপাড়া এলাকার তৈয়ব আলীর মেয়ে। মঙ্গলবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এমন অভিযোগ করেন গৃহকর্মী পারুল আক্তার।
রোববার সন্ধ্যার সময় বোদা উপজেলার সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তারের সরকারি কোয়ার্টারে এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত নাসরিন আক্তার বোদা উপজেলার সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজকর্মী ও সে নীলফামারী জেলার হাতিবান্ধা ব্র্যাক ব্যাংক শাখার সুপারভাইজার আব্দুল জব্বারের স্ত্রী।
গৃহকর্মী পারুল আক্তার বলেন, পরিবারে অভাব-অনটন। এক আত্মীয়ের মাধ্যমে পরিচয় হয় বোদা উপজেলার সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তারের সাথে। ৬ বছর বয়সে তাকে তাঁর পরিবারের লোকজন সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তারের বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করতে পাঠায়। ভালো ভালোই দিন কেটে যাচ্ছিল পারুল আক্তারের। বেশকিছু দিন ধরে ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তার নানা ধরনের মিথ্যা অভিযোগ তুলে গৃহকর্মী পারুল আক্তারকে মারপিট করত বলে তিনি অভিযাগ করেন।
রোববার সন্ধ্যার দিকে ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তার সরকারি কোয়ার্টারের ভেতরে গৃহকর্মী পারুল আক্তারকে বেধরক মারপিট করে। এরপর গৃহকর্মী পারুল আক্তারকে একটি রুমের ভেতরে তালাবদ্ধ করে রেখে দেয় ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তার।
পরদিন সোমবার সকালে সুকৌশলে গৃহকর্মী পারুল আক্তার ওই বাড়ি থেকে বেড়িয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের নিজের বাড়িতে চলে আসে। এরপর পরিবারের লোকজনকে ঘটনাটি জানান। মঙ্গলবার সকালে অবস্থার অবনতি হলে পরিবারের লোকজন গৃহকর্মী পারুল আক্তারকে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
হাসপাতালের চিকিৎসক শুভেন্দ্র কুমার দেবনাথ বলেন, পারুল আক্তারের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের দাগ রয়েছে। তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি আব্দুল লতিফ মিঞা বলেন, খবর পাওয়ার পর হাসপাতালে গিয়ে গৃহকর্মী পারুল আক্তারের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে এবং বোদা থানায় মামলা দায়ের করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে বোদা থানার ওসি নুরুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
অভিযুক্ত সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তারের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।
বোদা উপজেলা সমাজসেবা অফিসার খায়রুল আলম বলেন, ঘটনাটি আমার জানা নেই। খোজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে বোদা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মাহমুদ হাসান বলেন, আমাকে বলেছিল মেয়েটি হারিয়ে গিয়েছে। কিন্তু মেয়েটিকে যে মারপিট করা হয়েছে এটি আপনার কাছ থেকে শুনলাম। খোজখবর নেওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য একটি মহলে পায়তারা চালাচ্ছে। তাই ঘটনাটি সুষ্ঠু তদন্ত করে অপরাধীদের প্রয়োজনীয় শাস্তির দাবি জানিয়েছে ঠাকুরগাঁওবাসী।

Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

জনপ্রিয় সংবাদ

সরকারী সমাজকর্মীর দ্বারা গৃহকর্মী নির্যাতিত

আপডেট টাইম ০৬:১৭:৩২ অপরাহ্ন, বুধবার, ৯ মে ২০১৮

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় এক গৃহকর্মীকে মারপিট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে এক সরকারি চাকুরীজীবির বিরুদ্ধে। আহত গৃহকর্মী পারুল আক্তার (১৪) ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। সে ঠাকুরগাঁও শহরের টিকাপাড়া এলাকার তৈয়ব আলীর মেয়ে। মঙ্গলবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এমন অভিযোগ করেন গৃহকর্মী পারুল আক্তার।
রোববার সন্ধ্যার সময় বোদা উপজেলার সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তারের সরকারি কোয়ার্টারে এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত নাসরিন আক্তার বোদা উপজেলার সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজকর্মী ও সে নীলফামারী জেলার হাতিবান্ধা ব্র্যাক ব্যাংক শাখার সুপারভাইজার আব্দুল জব্বারের স্ত্রী।
গৃহকর্মী পারুল আক্তার বলেন, পরিবারে অভাব-অনটন। এক আত্মীয়ের মাধ্যমে পরিচয় হয় বোদা উপজেলার সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তারের সাথে। ৬ বছর বয়সে তাকে তাঁর পরিবারের লোকজন সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তারের বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করতে পাঠায়। ভালো ভালোই দিন কেটে যাচ্ছিল পারুল আক্তারের। বেশকিছু দিন ধরে ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তার নানা ধরনের মিথ্যা অভিযোগ তুলে গৃহকর্মী পারুল আক্তারকে মারপিট করত বলে তিনি অভিযাগ করেন।
রোববার সন্ধ্যার দিকে ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তার সরকারি কোয়ার্টারের ভেতরে গৃহকর্মী পারুল আক্তারকে বেধরক মারপিট করে। এরপর গৃহকর্মী পারুল আক্তারকে একটি রুমের ভেতরে তালাবদ্ধ করে রেখে দেয় ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তার।
পরদিন সোমবার সকালে সুকৌশলে গৃহকর্মী পারুল আক্তার ওই বাড়ি থেকে বেড়িয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের নিজের বাড়িতে চলে আসে। এরপর পরিবারের লোকজনকে ঘটনাটি জানান। মঙ্গলবার সকালে অবস্থার অবনতি হলে পরিবারের লোকজন গৃহকর্মী পারুল আক্তারকে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
হাসপাতালের চিকিৎসক শুভেন্দ্র কুমার দেবনাথ বলেন, পারুল আক্তারের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের দাগ রয়েছে। তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি আব্দুল লতিফ মিঞা বলেন, খবর পাওয়ার পর হাসপাতালে গিয়ে গৃহকর্মী পারুল আক্তারের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে এবং বোদা থানায় মামলা দায়ের করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে বোদা থানার ওসি নুরুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
অভিযুক্ত সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজকর্মী নাসরিন আক্তারের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।
বোদা উপজেলা সমাজসেবা অফিসার খায়রুল আলম বলেন, ঘটনাটি আমার জানা নেই। খোজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে বোদা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মাহমুদ হাসান বলেন, আমাকে বলেছিল মেয়েটি হারিয়ে গিয়েছে। কিন্তু মেয়েটিকে যে মারপিট করা হয়েছে এটি আপনার কাছ থেকে শুনলাম। খোজখবর নেওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য একটি মহলে পায়তারা চালাচ্ছে। তাই ঘটনাটি সুষ্ঠু তদন্ত করে অপরাধীদের প্রয়োজনীয় শাস্তির দাবি জানিয়েছে ঠাকুরগাঁওবাসী।