এই ছবির কোনো দৃশ্য দেখে আন্দাজ করা যায় না, পরের দৃশ্যে কী হতে যাচ্ছে।

মোসলিমা খাতুন,সারাদিন ডেস্ক:: মাটির প্রজার দেশে শুরু হয় আরও দুটি বিখ্যাত ছবির শৈশবের নস্টালজিয়া দিয়ে। পথের পাঁচালীর অপু-দুর্গাকে মনে পড়ে যায়, মনে পড়ে মাটির ময়নার আনু-আসমাকে। তাদের মতোই যেন জামাল-লক্ষ্মী। তবে এরা ভাইবোন নয়, দুই বন্ধু।

লক্ষ্মীর হঠাৎ বিয়ে হয়ে যায়। জামালও চলে যায় অন্য গ্রামে। পড়াশোনাতেও ছেদ পড়ে, একটি এনজিও স্কুলে পড়ত সে। নতুন জায়গায় মা ফাতেমা একটি বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করেন। জামালের দায়িত্ব সেই গৃহস্থ ঘরের ছোট মেয়ের ফুটফরমাশ খাটা। কিন্তু সে আবার পড়ালেখা করতে চায়। নিজের ভবিষ্যৎ পরিচয় গড়তে চায় ছোট ছেলেটি, কিন্তু হঠাৎ অতীত এসে এলোমেলো করে দেয় তার ও মায়ের জীবন।

না, এটুকু পড়ে আগে থেকে ছবির কাহিনি যাঁরা আন্দাজ করতে চাইছেন, খুব একটা লাভ নেই। এই ছবির কোনো দৃশ্য দেখে আন্দাজ করা যায় না, পরের দৃশ্যে কী হতে যাচ্ছে।

প্রায় পাঁচ বছর ধরে একটু একটু করে নির্মিত হয়েছে গুপী বাঘা প্রডাকশনের মাটির প্রজার দেশে। সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে পরিচালক বিজন ইমতিয়াজ ও প্রযোজক আরিফুর রহমান ৮৮ মিনিটের ছবিটি বানিয়েছেন। তাঁদের পরিশ্রম যে সার্থক হয়েছে, সেটা বোঝা গিয়েছিল ২০১৬ সালেই। সেবার ছবিটি শিকাগো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ভারতের মাসান ও আলীগড়-এর মতো বহুল প্রশংসিত ছবিকে টপকে সেরা ছবির পুরস্কার জিতেছিল। এ পর্যন্ত ২০ টির বেশি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করেছে মাটির প্রজার দেশে।

ছবিতে অভিনয় করেছেন জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, রোকেয়া প্রাচী, কচি খন্দকার, আবদুল্লাহ রানা, মনির আহমেদ, রমিজ রাজু, শিউলি আখতার। জামাল চরিত্রে মাহমুদুর অনিন্দ্য ও ফাতেমা চরিত্রে চিন্ময়ী গুপ্ত ভালো অভিনয় করেছেন।

ছবির সিনেমাটোগ্রাফি এককথায় অসাধারণ, এ জন্য ধন্যবাদ পাবেন রামশ্রেয়াস রাও ও অ্যান্ড্রু ওয়েসম্যান। চলচ্চিত্রটি দর্শকদের নিয়ে যাবে হারিয়ে যাওয়া ছেলেবেলার মুহূর্তে, মাটি ও শিকড়ের খুব কাছাকাছি। রাজশাহীর যে গ্রামে ছবির শুটিং হয়েছে, তেমন একটি সবুজ নিস্তরঙ্গ গ্রাম যে এখনো আছে, তাতেও বিস্মিত হবেন দর্শক।

এই ছবির সব সংলাপ ও শব্দ ধারণ করা হয়েছে সরাসরি, কাজটি করেছেন আনিশ জন ও মার্ক কলম্বাস। ভারতের কলকাতার অর্ক মুখার্জির সংগীতায়োজনে ছবির একমাত্র গানটি গেয়েছেন সাত্যকি ব্যানার্জি। লেখা ও সুরও তাঁর। গানের নাম ‘কবিতা’।

ছবিটি বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছে গত শুক্রবার। ঢাকার বসুন্ধরা সিনেপ্লেক্সে সকাল ১০টা ৫০ ও বিকেল ৪টা ১০ মিনিটে দেখা যাচ্ছে ছবিটি। যমুনা ব্লকবাস্টার সিনেমাসে দুপুর ১২ টা, বেলা ৩টা ও সন্ধ্যা ৬টায়। রাজশাহীর উপহারে ছবিটি দেখা যাচ্ছে বেলা ৩ টা, বিকেল ৫টা ৪৫ ও সন্ধ্যা ৮টা ৪৫ মিনিটে।

এমন একটি ছবি মাত্র তিনটি প্রেক্ষাগৃহে? তবে প্রযোজক আরিফুর রহমান বলছেন, খুব শিগগির সারা দেশের দর্শকদের কাছে ছবিটি তাঁরা নিয়ে যাবেন।

ADs by sundarban PVC sundarban PVC Ads

ADs by Korotoa PVC Korotoa PVC Ads
ADs by Bank Asia Bank 

Asia Ads

নিচে মন্তব্য করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *