ঢাকা ০৪:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
আগামীতে আইসিটি সেক্টরে ১০ লক্ষ কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হবে ………….ঠাকুরগাঁওয়ে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পীরগঞ্জে বিদায় সংবর্ধনা ও দায়িত্বভার গ্রহণ শেখ সমশের আলী রোগীদের প্রতি অবহেলা কোনভাবেই সহ্য করা হবেনা- পীরগঞ্জে ২০ শয্যাবিশিষ্ট ডায়াবেটিস এন্ড জেনারেল হাসপাতালের উদ্বোধনী বক্তৃতায় স্বাস্থ্য মন্ত্রী পীরগঞ্জে ২শ’ পিস টার্পেন্টাডল সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক পীরগঞ্জে ফেন্সিডিল ও ইনজেকশন উদ্ধার : গ্রেফতার— ২ পীরগঞ্জে টার্পেন্টাডল ট্যাবলেট সহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক ডাচ বাংলা ব্যাংকের প্রতিনিধিকে মারপিট করে ৯ লক্ষ টাকা ছিনতাই বাংলাদেশে বিনিয়োগের এখন উপযুক্ত সময়: চীনা ব্যবসায়ীদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী ঠাকুরগাঁওয়ে পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু খালেদা জিয়ার জীবন হুমকির মুখে: মির্জা ফখরুল

যে ৭ অভ্যাস থাকলে আপনি সফল হবেনই!

এক্সক্লুসিভ ডেস্ক : আমরা সবাই সফল হতে চাই এবং জীবনে শান্তিতে থাকতে চাই। কিন্তু আমাদের প্রত্যেকের জীবনই ভিন্ন। তাই একই পথে হাঁটলে সবাই সফল হবে কি না, তা আমরা বুঝে উঠতে পারি না।

তবে সফল ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে কিছু মিল লক্ষ্য করা যায়। তাদের কাজ, জীবনযাপন, ভাবনায় মিল থাকে অনেকটাই। কিছু বিশেষ অভ্যাস আছে যা তারা মেনে চলেন এবং সেগুলো তাদের ক্ষেত্রে কার্যকরী হয়েছে। যদিও এমন অসংখ্য অভ্যাস রয়েছে যা সাফল্যের দিকে নিয়ে যেতে পারে, তার মধ্য থেকে যে ৭ অভ্যাস থাকলে আপনি সফল হবেনই:

লক্ষ্য নির্ধারণ: সফল ব্যক্তিরা অর্জনযোগ্য লক্ষ্য নির্ধারণ করেন। তারা যা অর্জন করতে চায় তা কল্পনা করে এবং তাকে ছোট, পরিচালনাযোগ্য উদ্দেশ্য অনুসারে বিভক্ত করে। এই লক্ষ্যগুলো তাদের জন্য একটি রোডম্যাপের মতো যা দিকনির্দেশ এবং অনুপ্রেরণা দেয়। ‘আপনি কতদূর পড়েছেন তা নয়, আপনি কতটা উঁচুতে বাউন্স করেছেন সেটাই গুরুত্বপূর্ণ।’- জিগ জিগলার।

সময় ব্যবস্থাপনা: সফল মানুষের জন্য সময় খুবই মূল্যবান। তারা কাজগুলোকে অগ্রাধিকার দেয়, প্রয়োজনে কম গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো ছেড়ে দেয় এবং সময় নষ্ট করা কার্যকলাপ এড়িয়ে যায়।

কার্যকর সময় ব্যবস্থাপনার কারণে তারা প্রতিটি দিনের সর্বোচ্চ ব্যবহার করতে পারে। ‘আমাদের সময়কে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে হবে, পালঙ্ক হিসেবে নয়।’- জন এফ. কেনেডি

নিরবচ্ছিন্নভাবে শিখতে থাকা: সফল ব্যক্তিরা জীবনব্যাপী শিক্ষা গ্রহণ করে। যা তাদের উন্নত করতে সাহায্য করে। তারা বুঝতে পারে যে জ্ঞানই শক্তি এবং নতুন দক্ষতা এবং তথ্য অর্জন করতে থাকে।

এই আশ্চর্যজনক অভ্যাস তাদের দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্বে আরও উদ্ভাবনী এবং মানানসই করে তোলে। ‘জীবন একটি পরীক্ষা যেখানে সিলেবাস অজানা এবং প্রশ্নপত্র সেট করা হয় না বা মডেল উত্তরপত্র নেই।’- সুধা মূর্তি

অধ্যবসায়: জীবন ফুলশয্যা নয়। জীবনে পরিশ্রম করতে হবে এবং বাধা ও চ্যালেঞ্জের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। সবচেয়ে সফল ব্যক্তিরা স্থিতিস্থাপক; তারা ব্যর্থতা এবং বিপত্তি থেকে ফিরতে জানে।

তারা বাধাকে বৃদ্ধির সুযোগ হিসেবে দেখে এবং এগিয়ে যেতে থাকে। ‘লোহাকে কেউ ধ্বংস করতে পারে না, কিন্তু তার নিজের মরিচাই ধ্বংস করতে পারে। একইভাবে, কেউ মানুষকে ধ্বংস করতে পারে না কিন্তু তার নিজের মানসিকতাই পারে।’- রতন টাটা।

নেটওয়ার্কিং: সাফল্যের জগতে দৃঢ় সম্পর্ক তৈরি করা এবং বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ। সফল ব্যক্তিরা নেটওয়ার্কিংয়ের শক্তি বোঝেন। তারা পেশাদার সম্পর্ক লালন করতে এবং সহযোগিতা, পরামর্শদাতা এবং সমর্থন খোঁজার জন্য সময় বিনিয়োগ করে। ‘যদি তুমি স্বপ্ন দেখতে পারো তাহলে তুমি তা পূরণ করতেও পারবে।’- ওয়াল্ট ডিজনি

স্বাস্থ্য এবং ভালোথাকা: সফল ব্যক্তিরা তাদের স্বাস্থ্যের যত্ন নেন। কারণ সুস্বাস্থ্য এবং সুস্থতা না থাকলে আপনি সফল হতে পারবেন না। সবচেয়ে সফল ব্যক্তিরা তাদের শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যকে অগ্রাধিকার দেন। নিয়মিত ব্যায়াম, সুষম খাদ্য খাওয়া এবং পর্যাপ্ত বিশ্রাম তাদের রুটিনের অন্যতম উপাদান। ‘আপনার সময় সীমিত, অন্যের জীবন যাপনের জন্য এটিকে নষ্ট করবেন না।’- স্টিভ জবস

পরোপকারী: অনেক সফল মানুষ পরোপকারী এবং সমাজকে ফিরিয়ে দিতে বিশ্বাসী। তারা তাদের বিশেষাধিকার জানে এবং বিশ্বে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে তাদের সাফল্যকে ব্যবহার করে।

এর ভেতরে দাতব্য দান, পরামর্শদান বা সম্প্রদায়ের উদ্যোগে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করা জড়িত থাকতে পারে। ‘আপনি যদি আপনার যা কিছু আছে সব ছেড়ে দিতে ইচ্ছুক হন তবে আপনি যা চান তা পেতে পারেন।’- অপরাহ উইনফ্রে

Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

জনপ্রিয় সংবাদ

আগামীতে আইসিটি সেক্টরে ১০ লক্ষ কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হবে ………….ঠাকুরগাঁওয়ে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

যে ৭ অভ্যাস থাকলে আপনি সফল হবেনই!

আপডেট টাইম ১২:৫৯:০১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ নভেম্বর ২০২৩

এক্সক্লুসিভ ডেস্ক : আমরা সবাই সফল হতে চাই এবং জীবনে শান্তিতে থাকতে চাই। কিন্তু আমাদের প্রত্যেকের জীবনই ভিন্ন। তাই একই পথে হাঁটলে সবাই সফল হবে কি না, তা আমরা বুঝে উঠতে পারি না।

তবে সফল ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে কিছু মিল লক্ষ্য করা যায়। তাদের কাজ, জীবনযাপন, ভাবনায় মিল থাকে অনেকটাই। কিছু বিশেষ অভ্যাস আছে যা তারা মেনে চলেন এবং সেগুলো তাদের ক্ষেত্রে কার্যকরী হয়েছে। যদিও এমন অসংখ্য অভ্যাস রয়েছে যা সাফল্যের দিকে নিয়ে যেতে পারে, তার মধ্য থেকে যে ৭ অভ্যাস থাকলে আপনি সফল হবেনই:

লক্ষ্য নির্ধারণ: সফল ব্যক্তিরা অর্জনযোগ্য লক্ষ্য নির্ধারণ করেন। তারা যা অর্জন করতে চায় তা কল্পনা করে এবং তাকে ছোট, পরিচালনাযোগ্য উদ্দেশ্য অনুসারে বিভক্ত করে। এই লক্ষ্যগুলো তাদের জন্য একটি রোডম্যাপের মতো যা দিকনির্দেশ এবং অনুপ্রেরণা দেয়। ‘আপনি কতদূর পড়েছেন তা নয়, আপনি কতটা উঁচুতে বাউন্স করেছেন সেটাই গুরুত্বপূর্ণ।’- জিগ জিগলার।

সময় ব্যবস্থাপনা: সফল মানুষের জন্য সময় খুবই মূল্যবান। তারা কাজগুলোকে অগ্রাধিকার দেয়, প্রয়োজনে কম গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো ছেড়ে দেয় এবং সময় নষ্ট করা কার্যকলাপ এড়িয়ে যায়।

কার্যকর সময় ব্যবস্থাপনার কারণে তারা প্রতিটি দিনের সর্বোচ্চ ব্যবহার করতে পারে। ‘আমাদের সময়কে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে হবে, পালঙ্ক হিসেবে নয়।’- জন এফ. কেনেডি

নিরবচ্ছিন্নভাবে শিখতে থাকা: সফল ব্যক্তিরা জীবনব্যাপী শিক্ষা গ্রহণ করে। যা তাদের উন্নত করতে সাহায্য করে। তারা বুঝতে পারে যে জ্ঞানই শক্তি এবং নতুন দক্ষতা এবং তথ্য অর্জন করতে থাকে।

এই আশ্চর্যজনক অভ্যাস তাদের দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্বে আরও উদ্ভাবনী এবং মানানসই করে তোলে। ‘জীবন একটি পরীক্ষা যেখানে সিলেবাস অজানা এবং প্রশ্নপত্র সেট করা হয় না বা মডেল উত্তরপত্র নেই।’- সুধা মূর্তি

অধ্যবসায়: জীবন ফুলশয্যা নয়। জীবনে পরিশ্রম করতে হবে এবং বাধা ও চ্যালেঞ্জের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। সবচেয়ে সফল ব্যক্তিরা স্থিতিস্থাপক; তারা ব্যর্থতা এবং বিপত্তি থেকে ফিরতে জানে।

তারা বাধাকে বৃদ্ধির সুযোগ হিসেবে দেখে এবং এগিয়ে যেতে থাকে। ‘লোহাকে কেউ ধ্বংস করতে পারে না, কিন্তু তার নিজের মরিচাই ধ্বংস করতে পারে। একইভাবে, কেউ মানুষকে ধ্বংস করতে পারে না কিন্তু তার নিজের মানসিকতাই পারে।’- রতন টাটা।

নেটওয়ার্কিং: সাফল্যের জগতে দৃঢ় সম্পর্ক তৈরি করা এবং বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ। সফল ব্যক্তিরা নেটওয়ার্কিংয়ের শক্তি বোঝেন। তারা পেশাদার সম্পর্ক লালন করতে এবং সহযোগিতা, পরামর্শদাতা এবং সমর্থন খোঁজার জন্য সময় বিনিয়োগ করে। ‘যদি তুমি স্বপ্ন দেখতে পারো তাহলে তুমি তা পূরণ করতেও পারবে।’- ওয়াল্ট ডিজনি

স্বাস্থ্য এবং ভালোথাকা: সফল ব্যক্তিরা তাদের স্বাস্থ্যের যত্ন নেন। কারণ সুস্বাস্থ্য এবং সুস্থতা না থাকলে আপনি সফল হতে পারবেন না। সবচেয়ে সফল ব্যক্তিরা তাদের শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যকে অগ্রাধিকার দেন। নিয়মিত ব্যায়াম, সুষম খাদ্য খাওয়া এবং পর্যাপ্ত বিশ্রাম তাদের রুটিনের অন্যতম উপাদান। ‘আপনার সময় সীমিত, অন্যের জীবন যাপনের জন্য এটিকে নষ্ট করবেন না।’- স্টিভ জবস

পরোপকারী: অনেক সফল মানুষ পরোপকারী এবং সমাজকে ফিরিয়ে দিতে বিশ্বাসী। তারা তাদের বিশেষাধিকার জানে এবং বিশ্বে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে তাদের সাফল্যকে ব্যবহার করে।

এর ভেতরে দাতব্য দান, পরামর্শদান বা সম্প্রদায়ের উদ্যোগে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করা জড়িত থাকতে পারে। ‘আপনি যদি আপনার যা কিছু আছে সব ছেড়ে দিতে ইচ্ছুক হন তবে আপনি যা চান তা পেতে পারেন।’- অপরাহ উইনফ্রে