ঢাকা ০৭:২৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ নভেম্বর ২০২৩, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম

স্টাফ রিপোর্টার::মনটা চায় আবার ইস্তফা দিয়ে ফিরে আসি। যেখানে মুগুর দেয়ার সেটাও জানি। একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম। মশিউজ্জামান (বারের গত নির্বাচনের সাব কমিটির প্রধান)কে আমরা মনে করতাম, ওরে বাবা, কী জানি ফেরেস্তা আসছে। সবচেয়ে বড় চোর হলো মশিউজ্জামান। যে সকল সুশীলরা আমাদেরকে বুদ্ধি দিতে যাবেন সেই সকল সুশীলদের আমরা বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গা নদীর কালো পানিতে ছেড়ে দেবো। গত রোববার বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নূর তপস।

ব্যারিস্টার তাপস তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ গঠনের আগেও অনেক বড় বড় আইনজীবী নেতা ছিলেন। কিন্তু যখন এই সংগঠন গঠন করা হয় তখন কিন্তু এইসব বিজ্ঞ, খ্যাতনামা, প্রাজ্ঞ, বড় বড় নেতাদের বাদ দিয়ে আমাদের মতো ছোট আইনজীবীদের নিয়ে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ গঠন করা হয়। সুতরাং এগুলো ভুললে চলবে না।

তাপস বলেন, মশিউজ্জামানকে আমরা মনে করতাম, ওরে বাবা, কি জানি ফেরেস্তা আসছে। সবচেয়ে বড় চোর হলো মশিউজ্জামান। একটা ভণ্ড। একটা রাজাকারের দালাল। এই মশিউজ্জামানকে আমরা মনে করতাম কী বিশাল এক ফেরেস্তাতুল্য। উনি যা বলবেন তাই হবে। আমাদের ন্যায্য দাবি ছিল। আইনগত দাবি ছিল। আমাদের সম্পাদক প্রার্থী আব্দুন নুর দুলাল তিনি হাতেনাতে তাদের চুরি ধরেছেন। ৬শ’ ব্যালট পেপার গায়েব। ৩১শ’ ভোট পড়েছে। তারা বলে ২৬শ’ ভোট পড়েছে। ৫শ’ ভোট গায়েব। আমরা যখন এগুলো তুলে ধরেছি, কঠোর হয়েছি, সোচ্চার হয়েছি, তখন তাদের থলের বিড়াল বেরিয়ে গেছে। আমরা বলেছি সবার সামনে ব্যালট পেপার এনে গণনা করো। যা ফলাফল হবে আমরা তা মেনে নেবো। সে সময় আমাদের সম্পাদক প্রার্থী আবদুন নুর দুলাল সে অধিকার পাননি। তারা ভোট গণনা বন্ধ করে দিয়ে ৪১ দিনের একটি নাটক সাজালো। প্রতিপক্ষ সম্পাদক প্রার্থীর চোখের ইশারায় ভোট গণনা না করে মশিউজ্জামান চলে গেলেন। তাপস বলেন,  একজন নির্বাচন কমিশনার নির্বাচনের কার্যক্রম সম্পন্ন না করে কোনো ভাবেই যেতে পারে না। কিন্তু তিনি তাই করেছেন। যোগসাজশে তারা এই কার্যক্রম করেছেন। এখন তারা বড় বড় কথা বলেন। এবারের নির্বাচনে তারা যে ন্যক্কারজনক কাজ করেছেন, একজন সভাপতি প্রার্থী যেভাবে ব্যালট ছিনতাইয়ে লিপ্ত হয়েছে তা অত্যন্ত ন্যক্কারজনক। সুপ্রিম কোর্টের ইতিহাসে কোনো সভাপতি প্রার্থীকে তাও আবার মাথায় টুপি দিয়ে, কতোরকম ভণ্ডামি। মাথায় টুপি দিয়ে ব্যালট ছিনতাই করে। ভণ্ড। ব্যালট চোর। ওরা যে দল করে সেই দল গণতন্ত্র চোর, সংবিধান চোর। ভোট চোর। ৯ বছর চোরেরা লুণ্ঠন করেছে। আমরা আর তা হতে দেবো না। এই চোরদের স্থান আর সুপ্রিম কোর্টে হবে না।

তিনি বলেন, আমাদের মাঝেই আবার কেউ কেউ সুশীল হয়ে যায়। নির্দেশনা দিয়ে রাজনীতি হয় না। ক্যামেরা আছে, অনেক কিছু বলা যাবে না। তা নাহলে একটা  গল্প শোনাতাম। যাইহোক এই সুশীল আমাদের দরকার নেই।  আমাদের সংগঠনের সুযোগ সুবিধা নিয়ে কেউ যদি সুশীল হতে চায় তাহলে তাকে সুশীল পর্যায়ে আমরা পৌঁছে দেবো। আমার দরকার ত্যাগী, পরীক্ষিত, আদর্শবান নেতাকর্মী। আমার সুশীল দরকার নেই। আমাকে শিক্ষা দেয়ার দরকার নেই। জননেত্রী শেখ হাসিনাকে শিক্ষা দেয়ার দরকার নেই। আমরা যথেষ্ট শিক্ষা গ্রহণ করে এসেছি। সেই পাকিস্তান আমল থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে স্বাধীনতা এনে দিয়েছি বাঙালি জাতিকে। আমাদের শিক্ষা দেয়ার দরকার নেই। কে শিক্ষা দিবে আমাদেরকে? সুতরাং কেউ যদি সুশীল হয় আমরা মনে করবো আপনারা ওই পক্ষ। আপানারা আমাদের পক্ষের না। তাপস বলেন, আমি নগর ভবন থেকে শুনি যে আমার নেতাকর্মীদের গায়ে হাত দেয়া হয়। মনটা চায় ইস্তফা দিয়ে আবার ফিরে আসি। একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম।

তিনি বলেন, সুতরাং এগুলো শুনলে খুব কষ্ট লাগে। বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের নেতাকর্মীরা আহত হবে, তাদের গায়ে হাত দেবে, এটা কোনোভাবে সহ্য করা যাবে না। মহিলা আইনজীবীদেরকে  অপদস্ত করবে, আর আমরা আইনজীবী হিসেবে এখানে বসে থাকবো। এটা হয় না। চোরদেরকে গ্রেপ্তার করে হাজতে ঢোকাতে হবে। এখানে আইনমন্ত্রী আছেন। আমি তার কাছে দাবি করবো, অচিরেই এইসব সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করা হোক। আর না হলে তাদেরকে এই বিচারাঙ্গনে যদি পাওয়া যায় সমুচিত জবাব দেবো। আমরা লিখতেও জানি। এজলাসে বলতেও জানি। আর যেখানে যা মুগুর দরকার, সেটাও জানি। আর যেসকল সুশীলরা আমাদেরকে বুদ্ধি দিতে যাবেন সেই সকল সুশীলদের আমরা বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গা নদীর কালো পানিতে ছেড়ে দেবো। তাপস আরও বলেন, ১৯৭১ সালে আমরা যখন যুদ্ধে ছিলাম তখন আমাদের বিরুদ্ধে সপ্তম নৌবহর পাঠিয়েছিল। আমরা যখন উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় যাচ্ছি, পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে চাইলাম, আমাদেরকে কালিমা দিয়ে অর্থ দিবে না বলল, অপবাদ দিলো যে- পারলে করো দেখি। তোমরা তো গরিব। তোমাদের তো অর্থ নেই। শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু নিজেদের টাকায় বানিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। বীর বাঙালি আমরা কারও কাছে মাথা নত করি না। এখন ষড়যন্ত্রকারীরা আমাদেরকে আবার হুঙ্কার দেয়। তারা ভুলে গেছে জননেত্রী শেখ হাসিনা কারও হুঙ্কারে চলে না।

হুমকি-ধমকিতে, কোনো স্যাংশন, কোনো নিষেধাজ্ঞায় আমরা পিছপা হবো, আমাদেরকে দাবায়া রাখতে পারবা- এই ধারণা অমূলক। একদমই কল্পনাপ্রসূত। কোনো নিষেধাজ্ঞা, কোনো স্যাংশন কোনো কিছুই বাঙালি জাতির এই অগ্রযাত্রা, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এই অগ্রযাত্রাকে আর কেউ দাবায়া রাখতে পারবে না।

সংগঠনের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক ও সিনিয়র এডভোকেট মোহাম্মদ ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন- এর সভাপতিত্বে এবং সংগঠনের সদস্য সচিব ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন আইনমন্ত্রী এডভোকেট আনিসুল হক, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী এডভোকেট শ ম রেজাউল করিম, বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট মাহবুব আলী, অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি  এডভোকেট  মো মোমতাজ উদ্দিন ফকির, সমিতির সম্পাদক এডভোকেট মো. আবদুন নুর দুলাল, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান এডভোকেট মো. মোখলেছুর রহমান বাদল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

 

Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম

আপডেট টাইম ১০:১৪:০০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ মে ২০২৩

স্টাফ রিপোর্টার::মনটা চায় আবার ইস্তফা দিয়ে ফিরে আসি। যেখানে মুগুর দেয়ার সেটাও জানি। একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম। মশিউজ্জামান (বারের গত নির্বাচনের সাব কমিটির প্রধান)কে আমরা মনে করতাম, ওরে বাবা, কী জানি ফেরেস্তা আসছে। সবচেয়ে বড় চোর হলো মশিউজ্জামান। যে সকল সুশীলরা আমাদেরকে বুদ্ধি দিতে যাবেন সেই সকল সুশীলদের আমরা বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গা নদীর কালো পানিতে ছেড়ে দেবো। গত রোববার বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নূর তপস।

ব্যারিস্টার তাপস তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ গঠনের আগেও অনেক বড় বড় আইনজীবী নেতা ছিলেন। কিন্তু যখন এই সংগঠন গঠন করা হয় তখন কিন্তু এইসব বিজ্ঞ, খ্যাতনামা, প্রাজ্ঞ, বড় বড় নেতাদের বাদ দিয়ে আমাদের মতো ছোট আইনজীবীদের নিয়ে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ গঠন করা হয়। সুতরাং এগুলো ভুললে চলবে না।

তাপস বলেন, মশিউজ্জামানকে আমরা মনে করতাম, ওরে বাবা, কি জানি ফেরেস্তা আসছে। সবচেয়ে বড় চোর হলো মশিউজ্জামান। একটা ভণ্ড। একটা রাজাকারের দালাল। এই মশিউজ্জামানকে আমরা মনে করতাম কী বিশাল এক ফেরেস্তাতুল্য। উনি যা বলবেন তাই হবে। আমাদের ন্যায্য দাবি ছিল। আইনগত দাবি ছিল। আমাদের সম্পাদক প্রার্থী আব্দুন নুর দুলাল তিনি হাতেনাতে তাদের চুরি ধরেছেন। ৬শ’ ব্যালট পেপার গায়েব। ৩১শ’ ভোট পড়েছে। তারা বলে ২৬শ’ ভোট পড়েছে। ৫শ’ ভোট গায়েব। আমরা যখন এগুলো তুলে ধরেছি, কঠোর হয়েছি, সোচ্চার হয়েছি, তখন তাদের থলের বিড়াল বেরিয়ে গেছে। আমরা বলেছি সবার সামনে ব্যালট পেপার এনে গণনা করো। যা ফলাফল হবে আমরা তা মেনে নেবো। সে সময় আমাদের সম্পাদক প্রার্থী আবদুন নুর দুলাল সে অধিকার পাননি। তারা ভোট গণনা বন্ধ করে দিয়ে ৪১ দিনের একটি নাটক সাজালো। প্রতিপক্ষ সম্পাদক প্রার্থীর চোখের ইশারায় ভোট গণনা না করে মশিউজ্জামান চলে গেলেন। তাপস বলেন,  একজন নির্বাচন কমিশনার নির্বাচনের কার্যক্রম সম্পন্ন না করে কোনো ভাবেই যেতে পারে না। কিন্তু তিনি তাই করেছেন। যোগসাজশে তারা এই কার্যক্রম করেছেন। এখন তারা বড় বড় কথা বলেন। এবারের নির্বাচনে তারা যে ন্যক্কারজনক কাজ করেছেন, একজন সভাপতি প্রার্থী যেভাবে ব্যালট ছিনতাইয়ে লিপ্ত হয়েছে তা অত্যন্ত ন্যক্কারজনক। সুপ্রিম কোর্টের ইতিহাসে কোনো সভাপতি প্রার্থীকে তাও আবার মাথায় টুপি দিয়ে, কতোরকম ভণ্ডামি। মাথায় টুপি দিয়ে ব্যালট ছিনতাই করে। ভণ্ড। ব্যালট চোর। ওরা যে দল করে সেই দল গণতন্ত্র চোর, সংবিধান চোর। ভোট চোর। ৯ বছর চোরেরা লুণ্ঠন করেছে। আমরা আর তা হতে দেবো না। এই চোরদের স্থান আর সুপ্রিম কোর্টে হবে না।

তিনি বলেন, আমাদের মাঝেই আবার কেউ কেউ সুশীল হয়ে যায়। নির্দেশনা দিয়ে রাজনীতি হয় না। ক্যামেরা আছে, অনেক কিছু বলা যাবে না। তা নাহলে একটা  গল্প শোনাতাম। যাইহোক এই সুশীল আমাদের দরকার নেই।  আমাদের সংগঠনের সুযোগ সুবিধা নিয়ে কেউ যদি সুশীল হতে চায় তাহলে তাকে সুশীল পর্যায়ে আমরা পৌঁছে দেবো। আমার দরকার ত্যাগী, পরীক্ষিত, আদর্শবান নেতাকর্মী। আমার সুশীল দরকার নেই। আমাকে শিক্ষা দেয়ার দরকার নেই। জননেত্রী শেখ হাসিনাকে শিক্ষা দেয়ার দরকার নেই। আমরা যথেষ্ট শিক্ষা গ্রহণ করে এসেছি। সেই পাকিস্তান আমল থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে স্বাধীনতা এনে দিয়েছি বাঙালি জাতিকে। আমাদের শিক্ষা দেয়ার দরকার নেই। কে শিক্ষা দিবে আমাদেরকে? সুতরাং কেউ যদি সুশীল হয় আমরা মনে করবো আপনারা ওই পক্ষ। আপানারা আমাদের পক্ষের না। তাপস বলেন, আমি নগর ভবন থেকে শুনি যে আমার নেতাকর্মীদের গায়ে হাত দেয়া হয়। মনটা চায় ইস্তফা দিয়ে আবার ফিরে আসি। একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম।

তিনি বলেন, সুতরাং এগুলো শুনলে খুব কষ্ট লাগে। বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের নেতাকর্মীরা আহত হবে, তাদের গায়ে হাত দেবে, এটা কোনোভাবে সহ্য করা যাবে না। মহিলা আইনজীবীদেরকে  অপদস্ত করবে, আর আমরা আইনজীবী হিসেবে এখানে বসে থাকবো। এটা হয় না। চোরদেরকে গ্রেপ্তার করে হাজতে ঢোকাতে হবে। এখানে আইনমন্ত্রী আছেন। আমি তার কাছে দাবি করবো, অচিরেই এইসব সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করা হোক। আর না হলে তাদেরকে এই বিচারাঙ্গনে যদি পাওয়া যায় সমুচিত জবাব দেবো। আমরা লিখতেও জানি। এজলাসে বলতেও জানি। আর যেখানে যা মুগুর দরকার, সেটাও জানি। আর যেসকল সুশীলরা আমাদেরকে বুদ্ধি দিতে যাবেন সেই সকল সুশীলদের আমরা বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গা নদীর কালো পানিতে ছেড়ে দেবো। তাপস আরও বলেন, ১৯৭১ সালে আমরা যখন যুদ্ধে ছিলাম তখন আমাদের বিরুদ্ধে সপ্তম নৌবহর পাঠিয়েছিল। আমরা যখন উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় যাচ্ছি, পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে চাইলাম, আমাদেরকে কালিমা দিয়ে অর্থ দিবে না বলল, অপবাদ দিলো যে- পারলে করো দেখি। তোমরা তো গরিব। তোমাদের তো অর্থ নেই। শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু নিজেদের টাকায় বানিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। বীর বাঙালি আমরা কারও কাছে মাথা নত করি না। এখন ষড়যন্ত্রকারীরা আমাদেরকে আবার হুঙ্কার দেয়। তারা ভুলে গেছে জননেত্রী শেখ হাসিনা কারও হুঙ্কারে চলে না।

হুমকি-ধমকিতে, কোনো স্যাংশন, কোনো নিষেধাজ্ঞায় আমরা পিছপা হবো, আমাদেরকে দাবায়া রাখতে পারবা- এই ধারণা অমূলক। একদমই কল্পনাপ্রসূত। কোনো নিষেধাজ্ঞা, কোনো স্যাংশন কোনো কিছুই বাঙালি জাতির এই অগ্রযাত্রা, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এই অগ্রযাত্রাকে আর কেউ দাবায়া রাখতে পারবে না।

সংগঠনের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক ও সিনিয়র এডভোকেট মোহাম্মদ ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন- এর সভাপতিত্বে এবং সংগঠনের সদস্য সচিব ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন আইনমন্ত্রী এডভোকেট আনিসুল হক, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী এডভোকেট শ ম রেজাউল করিম, বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট মাহবুব আলী, অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি  এডভোকেট  মো মোমতাজ উদ্দিন ফকির, সমিতির সম্পাদক এডভোকেট মো. আবদুন নুর দুলাল, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান এডভোকেট মো. মোখলেছুর রহমান বাদল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।