ঢাকা ১১:২৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পুতিন কেন এত জনপ্রিয়?

আজম রেহমান,সারাদিন ডেস্ক:: রাশিয়ার সদ্য শেষ হওয়া প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ৭৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ২০১২ সালের নির্বাচনের চেয়ে এবার বেশি ভোটে জয়ী হন পুতিন। শেষবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পুতিন পেয়েছিলেন ৬৩ দশমিক ৬ শতাংশ ভোট। অর্থাৎ রাশিয়ায় পুতিনের জনপ্রিয়তা আগের চেয়ে যে বেড়েছে, তা আমরা বলতেই পারি। কিন্তু রাশিয়ায় পুতিনের কেন একচেটিয়া জনপ্রিয়তা?

রুশ গণমাধ্যম স্পুতনিক রেডিও এ বিষয়ে কথা বলেছে ভারতের জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর রাশিয়ান অ্যান্ড এশিয়ান স্টাডিজের অধ্যাপক অনুরাধা চেনোইয়ের সঙ্গে। স্পুতনিক নিউজ ডট কমে প্রকাশিত ওই সাক্ষাৎকারের কিছু অংশ দেওয়া হলো।

স্পুতনিক : মূলধারার গণমাধ্যমে থেকে আমরা অনেক অভিযোগ শুনতে পাচ্ছি যে নির্বাচন স্বচ্ছ ছিল না। আপনি কি তাই মনে করেন?
চেনোই : নির্বাচনে পক্ষপাতিত্ব ছিল, আমি তা মনে করছি না। এ বিষয়ে মন্তব্য করার আগে রাশিয়ায় যেভাবে রাজনীতির চর্চা গড়ে উঠেছে, তা জানতে হবে। সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ার পর রাশিয়া স্বাধীন হলেও সে দেশের রাজনৈতিক দলগুলো দুর্বলই রয়ে গেছে।

যেখানে গণতন্ত্রচর্চা হয়, সাধারণত সেখানে অনেক শক্তিশালী বহু দলগত পদ্ধতি থাকে, কিন্তু রাশিয়ার ক্ষেত্রে আমরা তা দেখতে পাইনি। প্রেসিডেন্ট পুতিন ও তাঁর দল অন্যদের ওপর একচেটিয়া প্রভাব রেখেছে। তবে ভালো হতো যদি রাশিয়ায় আরও শক্তিশালী রাজনৈতিক দল থাকত, কিন্তু এর জন্য অনেক সময়ের প্রয়োজন। গণতন্ত্র বিকশিত হতে সময় দরকার। তাই আমি মনে করি না যে এ কারণে রাশিয়াকে বা প্রেসিডেন্ট পুতিনকে কেউ দোষ দিতে পারে।

স্পুতনিক : রাজনৈতিক দলগুলোর একে অপরের সঙ্গে কেন বৈশিষ্ট্যগত এত ফারাক রয়েছে বলে আপনি মনে করেন?
চেনোই : অনেক রাজনৈতিক দল রয়েছে, কিন্তু গণতান্ত্রিক সংস্কৃতির সত্যিই বণ্টন করা প্রয়োজন। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়া উচিত এবং রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় একধরনের আস্থা থাকা উচিত। সবকিছু নিয়ে দোষ দেওয়ার মনোভাব থাকা ঠিক নয়। তরুণ প্রজন্মকে রাজনীতির প্রতি আকৃষ্ট করা উচিত। তরুণদের পথ দেখানো উচিত এবং সৃজনশীলতা রক্ষা করে রাজনৈতিক তর্ক-বিতর্ক বৃদ্ধি করা উচিত।

আমি মনে করি, এ দেশে একটা রাজনৈতিক বিতর্ক অবশ্যই রয়েছে। তবে ক্যাডার, সংগঠন, শক্তি ও অর্থের সমন্বয়ে রাজনৈতিক দলগুলো কাঠামোগতভাবে এখনো সংগঠিত হয়নি।

বর্তমানে রাশিয়াসহ সব দেশই অর্থনৈতিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। তাই অনেক দেশের মানুষই সে দেশে একজন শক্তিশালী ও জনপ্রিয় নেতা চাইছেন।

আমি ব্যক্তিগতভাবেই মনে করি, রাশিয়া ভাগ্যবান এই অর্থে, সে দেশের মানুষের প্রেসিডেন্ট পুতিনের মতো একজন চৌকস নেতা রয়েছে।

পুতিন রাশিয়াকে স্থিতিশীল করেছেন, তিনি রাশিয়াকে রাষ্ট্র হিসেবে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেছেন। এ কারণেই তিনি রাশিয়ায় এতটা জনপ্রিয়। আমি তাঁকে একজন জনপ্রিয় নেতা বলে মনে করি।

আমি মনে করি, সাম্প্রতিক ঘটনাবলি নিয়ে পুতিন তাঁর কথা রাখতে পেরেছেন। যদিও এ নিয়ে রুশ সমাজে ভিন্নমত রয়েছে। তবে অর্থনৈতিক নীতিমালা এবং সিরিয়া ও ইউক্রেন ইস্যু নিয়ে পুতিনের অবস্থান সম্পর্কে তিনি নিজেই বেশ কিছু যুক্তি তুলে ধরেছেন; যা ছিল ন্যায্য এবং রুশ নাগরিকেরা অবশ্যই তাঁকে সমর্থন করেছেন।

Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

জনপ্রিয় সংবাদ

পুতিন কেন এত জনপ্রিয়?

আপডেট টাইম ০৯:১৪:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ মার্চ ২০১৮

আজম রেহমান,সারাদিন ডেস্ক:: রাশিয়ার সদ্য শেষ হওয়া প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ৭৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ২০১২ সালের নির্বাচনের চেয়ে এবার বেশি ভোটে জয়ী হন পুতিন। শেষবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পুতিন পেয়েছিলেন ৬৩ দশমিক ৬ শতাংশ ভোট। অর্থাৎ রাশিয়ায় পুতিনের জনপ্রিয়তা আগের চেয়ে যে বেড়েছে, তা আমরা বলতেই পারি। কিন্তু রাশিয়ায় পুতিনের কেন একচেটিয়া জনপ্রিয়তা?

রুশ গণমাধ্যম স্পুতনিক রেডিও এ বিষয়ে কথা বলেছে ভারতের জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর রাশিয়ান অ্যান্ড এশিয়ান স্টাডিজের অধ্যাপক অনুরাধা চেনোইয়ের সঙ্গে। স্পুতনিক নিউজ ডট কমে প্রকাশিত ওই সাক্ষাৎকারের কিছু অংশ দেওয়া হলো।

স্পুতনিক : মূলধারার গণমাধ্যমে থেকে আমরা অনেক অভিযোগ শুনতে পাচ্ছি যে নির্বাচন স্বচ্ছ ছিল না। আপনি কি তাই মনে করেন?
চেনোই : নির্বাচনে পক্ষপাতিত্ব ছিল, আমি তা মনে করছি না। এ বিষয়ে মন্তব্য করার আগে রাশিয়ায় যেভাবে রাজনীতির চর্চা গড়ে উঠেছে, তা জানতে হবে। সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ার পর রাশিয়া স্বাধীন হলেও সে দেশের রাজনৈতিক দলগুলো দুর্বলই রয়ে গেছে।

যেখানে গণতন্ত্রচর্চা হয়, সাধারণত সেখানে অনেক শক্তিশালী বহু দলগত পদ্ধতি থাকে, কিন্তু রাশিয়ার ক্ষেত্রে আমরা তা দেখতে পাইনি। প্রেসিডেন্ট পুতিন ও তাঁর দল অন্যদের ওপর একচেটিয়া প্রভাব রেখেছে। তবে ভালো হতো যদি রাশিয়ায় আরও শক্তিশালী রাজনৈতিক দল থাকত, কিন্তু এর জন্য অনেক সময়ের প্রয়োজন। গণতন্ত্র বিকশিত হতে সময় দরকার। তাই আমি মনে করি না যে এ কারণে রাশিয়াকে বা প্রেসিডেন্ট পুতিনকে কেউ দোষ দিতে পারে।

স্পুতনিক : রাজনৈতিক দলগুলোর একে অপরের সঙ্গে কেন বৈশিষ্ট্যগত এত ফারাক রয়েছে বলে আপনি মনে করেন?
চেনোই : অনেক রাজনৈতিক দল রয়েছে, কিন্তু গণতান্ত্রিক সংস্কৃতির সত্যিই বণ্টন করা প্রয়োজন। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়া উচিত এবং রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় একধরনের আস্থা থাকা উচিত। সবকিছু নিয়ে দোষ দেওয়ার মনোভাব থাকা ঠিক নয়। তরুণ প্রজন্মকে রাজনীতির প্রতি আকৃষ্ট করা উচিত। তরুণদের পথ দেখানো উচিত এবং সৃজনশীলতা রক্ষা করে রাজনৈতিক তর্ক-বিতর্ক বৃদ্ধি করা উচিত।

আমি মনে করি, এ দেশে একটা রাজনৈতিক বিতর্ক অবশ্যই রয়েছে। তবে ক্যাডার, সংগঠন, শক্তি ও অর্থের সমন্বয়ে রাজনৈতিক দলগুলো কাঠামোগতভাবে এখনো সংগঠিত হয়নি।

বর্তমানে রাশিয়াসহ সব দেশই অর্থনৈতিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। তাই অনেক দেশের মানুষই সে দেশে একজন শক্তিশালী ও জনপ্রিয় নেতা চাইছেন।

আমি ব্যক্তিগতভাবেই মনে করি, রাশিয়া ভাগ্যবান এই অর্থে, সে দেশের মানুষের প্রেসিডেন্ট পুতিনের মতো একজন চৌকস নেতা রয়েছে।

পুতিন রাশিয়াকে স্থিতিশীল করেছেন, তিনি রাশিয়াকে রাষ্ট্র হিসেবে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেছেন। এ কারণেই তিনি রাশিয়ায় এতটা জনপ্রিয়। আমি তাঁকে একজন জনপ্রিয় নেতা বলে মনে করি।

আমি মনে করি, সাম্প্রতিক ঘটনাবলি নিয়ে পুতিন তাঁর কথা রাখতে পেরেছেন। যদিও এ নিয়ে রুশ সমাজে ভিন্নমত রয়েছে। তবে অর্থনৈতিক নীতিমালা এবং সিরিয়া ও ইউক্রেন ইস্যু নিয়ে পুতিনের অবস্থান সম্পর্কে তিনি নিজেই বেশ কিছু যুক্তি তুলে ধরেছেন; যা ছিল ন্যায্য এবং রুশ নাগরিকেরা অবশ্যই তাঁকে সমর্থন করেছেন।