ঢাকা ০৩:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
গৃহবধুকে ধর্ষনের পর হত্যা, ২ ঘাতক গ্রেপ্তার ঠাকুরগাঁওয়ে দ্বিতীয় ধাপে দু’টি উপজেলায় নতুন প্রার্থী বিজয়ী ঠাকুরগাঁওয়ে দ্বিতীয় ধাপে দু’টি উপজেলায় নতুন প্রার্থী বিজয়ী উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় সুকুমার রায়কে বিএনপি থেকে বহিষ্কার ঠাকুরগাঁও নারকোটিকস এর অভিযানে ভারতীয় টার্পেন্টাডল ট্যাবলেটের চালান ঠাকুরগাঁওয়ে নারকোটিকস’র অভিযানে মাদকের বড় চালান আটক পীরগঞ্জে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উপলক্ষে সভা অনুষ্ঠিত পীরগঞ্জে ৩০ পিস টার্পেন্টাডল সহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক পীরগঞ্জে ১৫০ গ্রাম শুকনো গাজা সহ ব্যবসায়ী আটক ঠাকুরগাঁওয়ে ঠিকাদারদের নিয়ে এলজিইডি’র দিনব্যাপী কর্মশালা

আগামীকাল পরীক্ষা তাই আগে ভাগেই বিদ্যালয় ছুটি

রানীশংকৈল প্রতিনিধিঃ-
শনিবার সময় তখন বিকাল ৩টা হঠাৎ করেই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বই খাতা নিয়ে ছুটাছুটি করে বাড়ী যাচ্ছে। নির্দিষ্ট সময়ের আগে শিক্ষার্থীদের বাড়ী যাওয়ার বিষয়টি জানার কৌতুহল জাগে এ প্রতিবেদকের।
ঠাকুরগায়ের রানীশংকৈল উপজেলার বলঞ্চা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়টির শ্রেণী কক্ষগুলো তালাবদ্ব কোন শিক্ষক নেই। একটি রুমে কিছু শিক্ষার্থী ও নৈশ্য ও অফিস সহকারী বাবুল মিলে হৈচৈ করছে। বিদ্যালয় এত তারাতাড়ি ছুটি কেন শিক্ষার্থীদের নিকট জানতে চাইলে নৈশ্য প্রহরী বাবুল আগ বাড়িয়ে বলেন,কালকে বার্ষিক পরীক্ষা তাই বিদ্যালয় তারাতারী ছুটি দেওয়া হয়েছেএ তাহলে আপনসিহ শিক্ষার্থীর এখন কি করছেন প্রশ্নে বলেন, কালকের পরীক্ষার রুল নাম্বার বসাতে হবে। তাই কিছু শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা নিয়ে কাজটি করা হচ্ছে। একইভাবে আলসিয়া ভকরগাও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভকরগাও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মহারাজা সরকারী প্রথামিক বিদ্যালয়সহ একাধিক বিদ্যালয় গিয়ে একই চিত্র দেখা যায়, ঐ বিদ্যালয়ের আশ পাশের ব্যক্তিদের সাথে কথা বলে জানা যায়, আগামীকাল(রবিবার) সকল শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হবে। এ অজুহাতে তারা নিজেরাও তারাতারি বাড়ী ফিরেন,এবং শিক্ষার্থীদেরও তারাতারি ছুটি দেন। অথচ সরকারী নিয়ম অনুযায়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কর্মদিবস শুরু হয় সকাল ৯টা থেকে শেষ হয় বিকাল ৪টা ১৫ মিনিটে। নিয়ম-নীতিকে তোয়াক্কা না করে পরীক্ষার অজুহাতে বিদ্যালয় ছুটি দেওয়াটা দায়িত্বহীনতার সামিল বলে মনে করেন সচেতনমহল। এছাড়াও অভিযোগ রয়েছে একাধিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ সহকারী শিক্ষক নামে মাত্র বিদ্যালয়ে হাজির হয়ে খাতায় স্বাক্ষর করে মাসের পর মাস বেতন তুলছেন। এদের বিরুদ্বে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষা ভাবে উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে জানালেও তিনি অজ্ঞাত কারনে ব্যবস্থা নেন না।
এ প্রসঙ্গে বক্তব্য নিতে উপজেলা শিক্ষা অফিসার জামাল উদ্দীনের মুঠোফোনে একাধিবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেন নি।

Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

গৃহবধুকে ধর্ষনের পর হত্যা, ২ ঘাতক গ্রেপ্তার

আগামীকাল পরীক্ষা তাই আগে ভাগেই বিদ্যালয় ছুটি

আপডেট টাইম ০৬:৫৬:১১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৭

রানীশংকৈল প্রতিনিধিঃ-
শনিবার সময় তখন বিকাল ৩টা হঠাৎ করেই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বই খাতা নিয়ে ছুটাছুটি করে বাড়ী যাচ্ছে। নির্দিষ্ট সময়ের আগে শিক্ষার্থীদের বাড়ী যাওয়ার বিষয়টি জানার কৌতুহল জাগে এ প্রতিবেদকের।
ঠাকুরগায়ের রানীশংকৈল উপজেলার বলঞ্চা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়টির শ্রেণী কক্ষগুলো তালাবদ্ব কোন শিক্ষক নেই। একটি রুমে কিছু শিক্ষার্থী ও নৈশ্য ও অফিস সহকারী বাবুল মিলে হৈচৈ করছে। বিদ্যালয় এত তারাতাড়ি ছুটি কেন শিক্ষার্থীদের নিকট জানতে চাইলে নৈশ্য প্রহরী বাবুল আগ বাড়িয়ে বলেন,কালকে বার্ষিক পরীক্ষা তাই বিদ্যালয় তারাতারী ছুটি দেওয়া হয়েছেএ তাহলে আপনসিহ শিক্ষার্থীর এখন কি করছেন প্রশ্নে বলেন, কালকের পরীক্ষার রুল নাম্বার বসাতে হবে। তাই কিছু শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা নিয়ে কাজটি করা হচ্ছে। একইভাবে আলসিয়া ভকরগাও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভকরগাও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মহারাজা সরকারী প্রথামিক বিদ্যালয়সহ একাধিক বিদ্যালয় গিয়ে একই চিত্র দেখা যায়, ঐ বিদ্যালয়ের আশ পাশের ব্যক্তিদের সাথে কথা বলে জানা যায়, আগামীকাল(রবিবার) সকল শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হবে। এ অজুহাতে তারা নিজেরাও তারাতারি বাড়ী ফিরেন,এবং শিক্ষার্থীদেরও তারাতারি ছুটি দেন। অথচ সরকারী নিয়ম অনুযায়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কর্মদিবস শুরু হয় সকাল ৯টা থেকে শেষ হয় বিকাল ৪টা ১৫ মিনিটে। নিয়ম-নীতিকে তোয়াক্কা না করে পরীক্ষার অজুহাতে বিদ্যালয় ছুটি দেওয়াটা দায়িত্বহীনতার সামিল বলে মনে করেন সচেতনমহল। এছাড়াও অভিযোগ রয়েছে একাধিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ সহকারী শিক্ষক নামে মাত্র বিদ্যালয়ে হাজির হয়ে খাতায় স্বাক্ষর করে মাসের পর মাস বেতন তুলছেন। এদের বিরুদ্বে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষা ভাবে উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে জানালেও তিনি অজ্ঞাত কারনে ব্যবস্থা নেন না।
এ প্রসঙ্গে বক্তব্য নিতে উপজেলা শিক্ষা অফিসার জামাল উদ্দীনের মুঠোফোনে একাধিবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেন নি।