ঢাকা ১২:৩৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হাত তুলে ওয়াদা করুন নৌকা মার্কায় ভোট দিবেন

আজম রেহমান:: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ক্ষমতায় গেলে বিএনপি উপহার দেয় লাশ। আর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলে মানুষ পায় উন্নতি। নৌকা উন্নয়নের প্রতীক। আসছে নির্বাচনেও নৌকা মার্কায় ভোট দিন। আপনাদের সোনার বাংলা উপহার দেবো।

বৃহস্পতিবার(২৯ মার্চ) বিকেল ৩টায় ঠাকুরগাঁও সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার হারানোর কিছু নেই। পাওয়ারও কিছু নেই। আপনাদের সেবা করতে চাই। তাই উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় নৌকা মার্কায় ভোট চাই। হাত তুলে ওয়াদা করুন নৌকা মার্কায় ভোট দিবেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর প্রত্যেক উপজেলায় অবকাঠামো থেকে শুরু করে সব কিছু উন্নয়ন করা হচ্ছে। বয়স্ক ভাতা দিয়েছি- যা আওয়ামী লীগ চালু করেছে, আর কেউ দেয়নি।

তিনি বলেন, দেশের ৬৭ লাখ বয়ষ্ক মানুষকে বয়ষ্ক ভাতা দিচ্ছি, মানুষের কল্যাণে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছি। ৮ লাখ প্রতিবন্ধীকে মাসে মাসে ভাতা দিচ্ছি। তাদের মধ্যে ৮০ হাজারকে বৃত্তি দেওয়া হচ্ছে পড়াশোনার জন্যে।

খালেদা জিয়ার জেলে যাওয়া প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, পবিত্র কুরআনে আছে, যে এতিমের টাকা মেরে খায়, তাকে শাস্তি পেতে হবে। যে এতিমের টাকা মেরে খায়, তার জন্য কিসের আন্দোলন।

মির্জা ফখরুল ইসলামের নাম উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ফখরুল দিন-রাত কথা বলেন। কথা বলতে বলতে গলা ফুলিয়ে দেন। প্রচুর মিথ্যা বলেন। মিথ্যা বললে আল্লাহও নারাজ হন। তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল বিমান প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। তিনি বিমানের কি উন্নয়ন করেছেন? বিমান চলে না। ঝরঝরে। সব কিছু ধ্বংস করে গেছে। সৈয়দপুর এয়ারপোর্ট বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ক্ষমতায় এসে বিমানের উন্নতি করেছি। পাঁচটি বিমান ক্রয় করেছি। আরও দুটো বিমান আনা হচ্ছে। সৈয়দপুর এয়ারপোর্ট চালু করেছি।

শিক্ষাখাতের চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, শিক্ষাখাতের উন্নয়নে নানা কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের হাতে জানুয়ারির ১ তারিখে বেই তুলে দেওয়া হচ্ছে। ১ কোটি ৩০ লাখ মাকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বৃত্তির টাকা পৌঁছে দিচ্ছি। কারিগরি শিক্ষার ব্যবস্থা করেছি। প্রত্যেক উপজেলায়, প্রত্যেক স্কুল-কলেজে কাজ করছি।

ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, কথা দিয়েছিলাম ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করবো- করেছি। ১৬ কোটি মানুষের দেশে ১৩ কোটি মানুষ মোবাইলের সিম ব্যবহার করে। দেশে ৫ হাজার ২৭৫ টি ডিজিটাল সেন্টার স্থাপন করেছি। সেখান থেকে সব তথ্য পাওয়া যায়। গ্রামে গ্রামে গিয়ে তথ্য আপারা কাজ করছেন।

নিজেকে জনগণের সেবক দাবি করে শেখ হাসিনা বলেন, আমি ক্ষমতায় এসে মানুষের উন্নয়নের কথা চিন্তা করি। দেশের প্রধান হিসেবে নিজেকে সেবক মনে করি। আমার ওপর ১৬ কোটি মানুষের দায়িত্ব রয়েছে। আমি সেই দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করার চেষ্টা করছি।

এর আগে বেলা ২টা ৪৫ মিনিটে জনসভাস্থলে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জনসভাস্থলে এসেই তিনি ৩৩টি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ৩৩টির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। পরে তিনি মোনাজাতে অংশ নেন।

প্রায় ১৭ বছর পর এই ঠাকুরগাঁওয়ে একদিনের সফরে গেলেন প্রধানমন্ত্রী। এ উপলক্ষে পুরো জেলায় ক’দিন ধরেই সাজ সাজ রব তৈরি হয়েছে। উচ্ছ্বসিত জেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। তাদের প্রত্যাশা, নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রীর এ সফর দলকে আরও ঐক্যবদ্ধ করবে।

Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

জনপ্রিয় সংবাদ

হাত তুলে ওয়াদা করুন নৌকা মার্কায় ভোট দিবেন

আপডেট টাইম ০৭:২৩:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ মার্চ ২০১৮

আজম রেহমান:: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ক্ষমতায় গেলে বিএনপি উপহার দেয় লাশ। আর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলে মানুষ পায় উন্নতি। নৌকা উন্নয়নের প্রতীক। আসছে নির্বাচনেও নৌকা মার্কায় ভোট দিন। আপনাদের সোনার বাংলা উপহার দেবো।

বৃহস্পতিবার(২৯ মার্চ) বিকেল ৩টায় ঠাকুরগাঁও সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার হারানোর কিছু নেই। পাওয়ারও কিছু নেই। আপনাদের সেবা করতে চাই। তাই উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় নৌকা মার্কায় ভোট চাই। হাত তুলে ওয়াদা করুন নৌকা মার্কায় ভোট দিবেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর প্রত্যেক উপজেলায় অবকাঠামো থেকে শুরু করে সব কিছু উন্নয়ন করা হচ্ছে। বয়স্ক ভাতা দিয়েছি- যা আওয়ামী লীগ চালু করেছে, আর কেউ দেয়নি।

তিনি বলেন, দেশের ৬৭ লাখ বয়ষ্ক মানুষকে বয়ষ্ক ভাতা দিচ্ছি, মানুষের কল্যাণে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছি। ৮ লাখ প্রতিবন্ধীকে মাসে মাসে ভাতা দিচ্ছি। তাদের মধ্যে ৮০ হাজারকে বৃত্তি দেওয়া হচ্ছে পড়াশোনার জন্যে।

খালেদা জিয়ার জেলে যাওয়া প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, পবিত্র কুরআনে আছে, যে এতিমের টাকা মেরে খায়, তাকে শাস্তি পেতে হবে। যে এতিমের টাকা মেরে খায়, তার জন্য কিসের আন্দোলন।

মির্জা ফখরুল ইসলামের নাম উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ফখরুল দিন-রাত কথা বলেন। কথা বলতে বলতে গলা ফুলিয়ে দেন। প্রচুর মিথ্যা বলেন। মিথ্যা বললে আল্লাহও নারাজ হন। তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল বিমান প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। তিনি বিমানের কি উন্নয়ন করেছেন? বিমান চলে না। ঝরঝরে। সব কিছু ধ্বংস করে গেছে। সৈয়দপুর এয়ারপোর্ট বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ক্ষমতায় এসে বিমানের উন্নতি করেছি। পাঁচটি বিমান ক্রয় করেছি। আরও দুটো বিমান আনা হচ্ছে। সৈয়দপুর এয়ারপোর্ট চালু করেছি।

শিক্ষাখাতের চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, শিক্ষাখাতের উন্নয়নে নানা কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের হাতে জানুয়ারির ১ তারিখে বেই তুলে দেওয়া হচ্ছে। ১ কোটি ৩০ লাখ মাকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বৃত্তির টাকা পৌঁছে দিচ্ছি। কারিগরি শিক্ষার ব্যবস্থা করেছি। প্রত্যেক উপজেলায়, প্রত্যেক স্কুল-কলেজে কাজ করছি।

ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, কথা দিয়েছিলাম ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করবো- করেছি। ১৬ কোটি মানুষের দেশে ১৩ কোটি মানুষ মোবাইলের সিম ব্যবহার করে। দেশে ৫ হাজার ২৭৫ টি ডিজিটাল সেন্টার স্থাপন করেছি। সেখান থেকে সব তথ্য পাওয়া যায়। গ্রামে গ্রামে গিয়ে তথ্য আপারা কাজ করছেন।

নিজেকে জনগণের সেবক দাবি করে শেখ হাসিনা বলেন, আমি ক্ষমতায় এসে মানুষের উন্নয়নের কথা চিন্তা করি। দেশের প্রধান হিসেবে নিজেকে সেবক মনে করি। আমার ওপর ১৬ কোটি মানুষের দায়িত্ব রয়েছে। আমি সেই দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করার চেষ্টা করছি।

এর আগে বেলা ২টা ৪৫ মিনিটে জনসভাস্থলে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জনসভাস্থলে এসেই তিনি ৩৩টি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ৩৩টির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। পরে তিনি মোনাজাতে অংশ নেন।

প্রায় ১৭ বছর পর এই ঠাকুরগাঁওয়ে একদিনের সফরে গেলেন প্রধানমন্ত্রী। এ উপলক্ষে পুরো জেলায় ক’দিন ধরেই সাজ সাজ রব তৈরি হয়েছে। উচ্ছ্বসিত জেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। তাদের প্রত্যাশা, নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রীর এ সফর দলকে আরও ঐক্যবদ্ধ করবে।