ঢাকা ১১:৩২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে ইট-ভাটায় জ্বালানী হিসেবে বৃক্ষ নিধন চলছে-নিরব জেলা প্রশাসন

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ে ৫টি উপজেলার ইট-ভাটা গুলোতে কাঠের স্তুপ মজুত করে অদৃশ্য কোন  মৌখিক নির্দেশে ও মোটা অংকের চাঁদায় এ জেলার ইট-ভাটা গুলোতে জ্বালানি হিসেবে বৃক্ষ নিধন চলছে। সরজমিনে ঘুরে এসে দেখা গেছে জেলার ৫টি উপজেলায় ইট ভাটায় জ্বালানি হিসেবে ব্যবহারের জন্য প্রায় ২০ হাজার টন বৃক্ষ নিধন রেখে জ্বালানি কাঠ মজুত রেখেছেন । ঠাকুরগাঁও জেলার পাশাপাশি ২টি জেলা পঞ্চগড় ও দিনাজপুরে জ্বালানী হিসেবে কয়লার মজুত রেখে এ জেলা ২টিতে ১ টিও ইট ভাটায় বৃক্ষ নিধন ও জ্বালানি কাঠের মজুত দেখা যায়নি। জানা যায় ওই ২ জেলার জেলা প্রশাসক ইট পোড়াতে বৃক্ষ নিধন আইন মেনে চলতে ইট ভাটা মালিকদের  আইন মানতে কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছেন। কিন্তু ঠাকুরগাঁও জেলায় প্রকাশ্যে বৃক্ষ নিধন ও এত কাঠ মজুত করা হলেও প্রশাসন ভাটার মালিকদের বিরুদ্বে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়নি ও নিচ্ছে না। ইট ভাটায় কেউ নিয়ম অমান্য করে কাঠ পোড়ালে তাঁর বিরুদ্বে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন নিয়ন্ত্রন আইন ২০১৩ এ জেলায় এই আইন ক্রয় বিক্রয়ের মহোৎসব চলছে। ঠাকুরগাঁও চৌরাস্তায় প্রতি ঘন্টায় ৫টি জ্বালানী কাঠ পরিবহন ট্রাক্টর পারাপার হতে দেখা যায়। এর সংখ্যা প্রতি জেলায় প্রতিদিন ১শ এর অধিক। স্থানীয়রা জানান অদৃশ্য কোন  মৌখিক নির্দেশে এবং ক্ষমতায় ইট ভাটার মালিকরা জ্বালানী হিসেবে কাঠ জ্বালানোর জন্য স্তুপ করে রেখেছে যা চোখে পড়ার মতো, ইহা পরিবেশ রক্ষায় ভয়াবহ হুমকি।

Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

জনপ্রিয় সংবাদ

ঠাকুরগাঁওয়ে ইট-ভাটায় জ্বালানী হিসেবে বৃক্ষ নিধন চলছে-নিরব জেলা প্রশাসন

আপডেট টাইম ০৫:৪৮:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ে ৫টি উপজেলার ইট-ভাটা গুলোতে কাঠের স্তুপ মজুত করে অদৃশ্য কোন  মৌখিক নির্দেশে ও মোটা অংকের চাঁদায় এ জেলার ইট-ভাটা গুলোতে জ্বালানি হিসেবে বৃক্ষ নিধন চলছে। সরজমিনে ঘুরে এসে দেখা গেছে জেলার ৫টি উপজেলায় ইট ভাটায় জ্বালানি হিসেবে ব্যবহারের জন্য প্রায় ২০ হাজার টন বৃক্ষ নিধন রেখে জ্বালানি কাঠ মজুত রেখেছেন । ঠাকুরগাঁও জেলার পাশাপাশি ২টি জেলা পঞ্চগড় ও দিনাজপুরে জ্বালানী হিসেবে কয়লার মজুত রেখে এ জেলা ২টিতে ১ টিও ইট ভাটায় বৃক্ষ নিধন ও জ্বালানি কাঠের মজুত দেখা যায়নি। জানা যায় ওই ২ জেলার জেলা প্রশাসক ইট পোড়াতে বৃক্ষ নিধন আইন মেনে চলতে ইট ভাটা মালিকদের  আইন মানতে কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছেন। কিন্তু ঠাকুরগাঁও জেলায় প্রকাশ্যে বৃক্ষ নিধন ও এত কাঠ মজুত করা হলেও প্রশাসন ভাটার মালিকদের বিরুদ্বে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়নি ও নিচ্ছে না। ইট ভাটায় কেউ নিয়ম অমান্য করে কাঠ পোড়ালে তাঁর বিরুদ্বে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন নিয়ন্ত্রন আইন ২০১৩ এ জেলায় এই আইন ক্রয় বিক্রয়ের মহোৎসব চলছে। ঠাকুরগাঁও চৌরাস্তায় প্রতি ঘন্টায় ৫টি জ্বালানী কাঠ পরিবহন ট্রাক্টর পারাপার হতে দেখা যায়। এর সংখ্যা প্রতি জেলায় প্রতিদিন ১শ এর অধিক। স্থানীয়রা জানান অদৃশ্য কোন  মৌখিক নির্দেশে এবং ক্ষমতায় ইট ভাটার মালিকরা জ্বালানী হিসেবে কাঠ জ্বালানোর জন্য স্তুপ করে রেখেছে যা চোখে পড়ার মতো, ইহা পরিবেশ রক্ষায় ভয়াবহ হুমকি।