ঢাকা ০৭:০০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
পীরগঞ্জে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় কিশোরের মৃত্যু জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সহ ৫ নেতার পীরগঞ্জে সংবর্ধনা ১৫০ পিস টার্পেন্টাডল সহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার প্রতিবন্ধী ভাতাভোগীদের অর্থ আত্মসাৎকারী চক্রের গ্রেফতার বিষয়ে ঠাকুরগাঁওয়ে সংবাদ সম্মেলন ঠাকুরগাঁওয়ে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় কমিউনিটি পুলিশিং সভা পীরগঞ্জে পেট্রোল পাম্পে ‘নো হেলমেট নো ফুয়েল’ ক্যাম্পিং পীরগঞ্জে স্কুল ছাত্রীকে উত্যক্ত করার দায়ে ইভটিজারের ১৫ দিনের জেল পীরগঞ্জে ভূমিসেবা সপ্তাহ আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ও আলোচনা সভা রক্ষক যখন ভক্ষকের ভূমিকায় ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভনে সম্পর্কের পর অস্বীকার, এলাকায় তোলপাড় ঠাকুরগাঁও জেলার শ্রেষ্ঠ নির্বাচিত হয়েছে পীরগঞ্জ থানা

ঠাকুরগাঁওয়ে জেলা প্রশাসক ৩০হাজার অসহায় দুস্হ শিশুর মুখে হাসি ফুটিয়েছেন

মনসুর  আহাম্মেদঃ   ঠাকুরগাঁওয়ে প্রত্যেক শিশুর নিরাপদ, সুস্থ ও আনন্দময় শৈশবের প্রত্যাশা সকলের। হোক না সে গরিব দুস্থ ঘরের শিশু বা বড়লোক ঘরে জন্মানো শিশু। ভাবতেই চোখে ভাসবে নিষ্ঠুর শীতে ক’দিন আগে শৈশবের দুরন্তপনায় খেলার মাঠ কাঁপানো শিশুরা আজ শীতের কারণে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অভিশপ্ত শীত থেকে আমাদের নিজ মা, বাবা, সন্তানের সঙ্গে আমরা পাশের মা, বাবা, সন্তানেরও খোঁজ নেই! কিন্তু এই শীতে অসহায় শিশুদের কথা ভেবেছেন একজন মানবিকতার শিক্ষক হিসেবে পরিচিত মানুষ।যখন ঠাকুরগাঁওয়ে প্রচন্ড শীতে জনজীবন বিপদস্থ। তখন অসহায় বৃদ্ধদের সাথে শিশুদের কথা ভেবে নতুন ৩০ হাজার সোয়েটার বিতরণের উদ্যোগ গ্রহন করেন মানবিকতার শিক্ষক হিসেবে পরিচিত ঠাকুরগাওয়ের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল।তিনি বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজি, সেচ্ছাসেবী সংগঠন, সহযোগি সংগঠন ও কিছু পরিচিত ব্যাক্তির মাধ্যমে শিশুদের কাছে নতুন সোয়েটার পৌছে দিয়েছেন। হাসি ফুটিয়েছেন ওই সকল অসহায় দুস্থ শিশুদের মুখে।সমাজের অসহায়, গরিব দুস্থ মানুষগুলো এই নিষ্ঠুর অবিচারি শীতে কতই না কষ্ট পাচ্ছেন? সেই মানুষগুলোর জন্য কারও মাথা ব্যথার প্রয়োজন নেই! কেনই বা থাকবে, ওরা সমাজের কে? আর মানবতা দিয়েই বা কী হবে? আপনে বাঁচলে বাপের নাম! এমনটাই মনে করেন এখন অনেকে।কিন্তু ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়ালের ছোট একটি উদ্যোগ জেলার দুস্থ পরিবারের ৩০ হাজার শিশুর মুখে হাসি ফুটিয়েছে। অসহায় দুস্থ ৩০ হাজার শিশুকে নতুন সোয়েটার দিয়ে তিনি একদিকে নতুন কাপড় পাওয়ার আনন্দ দিয়েছেন অন্যদিকে শীত নিবারণ করেছেন। তার এই উদ্যেগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন জেলার অনেক মানুষ। বর্তমানে সোয়েটার বিতরণের ছবি সকলের ফেসবুক জুরে রয়েছে। কমেন্টের মাধ্যমে ধন্যবাদ ও দোয়া করছেন অনেকে জেলা প্রশাসকের জন্য। ৩০ হাজার সোয়েটার জেলা প্রশাসক ৫টি উপজেলা, প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ঠাকুরগাঁও জেলা শাখা, নব জাগ্রত ফাউন্ডেশন, জেলার বিভিন্ন সাংবাদিক, বিভিন্ন সংগঠন, জেলা প্রশাসকের পরিচিত মানুষের সহযোগিতায় দুস্থ অসহায় শিশুদের মাঝে বিতরণ করেন।প্রবিণ সাংবাদিক আব্দুল লতিফ বলেন, জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল ঠাকুরগাঁওয়ের মানুষকে মানবতার শিক্ষা দিচ্ছেন প্রতিনিয়ত। তার ভালো ভালো কাজ গুলো দেখে আমাদের সন্তানেরা ভালো শিক্ষা গ্রহন করছে। তার ছোট ছোট উদ্যেগগুলো সমাজ পরিবর্তনে ভূমিকা রাখছে।ঠাকুরগাঁও মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, সমাজ পরির্বতনের জন্য আমাদের সকলের একত্রিত হয়ে কাজ করা উচিৎ। আমরা যৌথ ভাবে চেষ্টা করলে সমাজের মানুষগুলো ভালো থাকবে। জেলা প্রশাসক ঠাকুরগাঁওয়ের মানুষকে মানবতার শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছেন। আমাদের সকলের প্রয়োজন জেলা প্রশাসককে সহযোগিতা করা। ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল বলেন, আমরা সমাজের প্রতিটি মানুষ যদি ছোট ছোট উদ্যেগ গ্রহন করি দুস্থ ও অসহায় মানুষ গুলোর জন্য, তাহলে ক্ষুধা, দারিদ্র মুক্ত সমাজ ও দেশ গড়তে বেশিদিন সময় লাগবে না আমাদের। আসুন না আমরা শীর্তাত অসহায় মানুষ গুলোর পাশে গিয়ে দাড়াই। সমাজকে বদলানোর অঙ্গিকার নিয়ে সকলে একত্রিত হয়ে আমাদের সমাজ ও দেশটাকে সুন্দর করে গড়ে তুলি।

2 Attachments
Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

জনপ্রিয় সংবাদ

পীরগঞ্জে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় কিশোরের মৃত্যু

ঠাকুরগাঁওয়ে জেলা প্রশাসক ৩০হাজার অসহায় দুস্হ শিশুর মুখে হাসি ফুটিয়েছেন

আপডেট টাইম ০৭:৫৮:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০১৮

মনসুর  আহাম্মেদঃ   ঠাকুরগাঁওয়ে প্রত্যেক শিশুর নিরাপদ, সুস্থ ও আনন্দময় শৈশবের প্রত্যাশা সকলের। হোক না সে গরিব দুস্থ ঘরের শিশু বা বড়লোক ঘরে জন্মানো শিশু। ভাবতেই চোখে ভাসবে নিষ্ঠুর শীতে ক’দিন আগে শৈশবের দুরন্তপনায় খেলার মাঠ কাঁপানো শিশুরা আজ শীতের কারণে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অভিশপ্ত শীত থেকে আমাদের নিজ মা, বাবা, সন্তানের সঙ্গে আমরা পাশের মা, বাবা, সন্তানেরও খোঁজ নেই! কিন্তু এই শীতে অসহায় শিশুদের কথা ভেবেছেন একজন মানবিকতার শিক্ষক হিসেবে পরিচিত মানুষ।যখন ঠাকুরগাঁওয়ে প্রচন্ড শীতে জনজীবন বিপদস্থ। তখন অসহায় বৃদ্ধদের সাথে শিশুদের কথা ভেবে নতুন ৩০ হাজার সোয়েটার বিতরণের উদ্যোগ গ্রহন করেন মানবিকতার শিক্ষক হিসেবে পরিচিত ঠাকুরগাওয়ের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল।তিনি বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজি, সেচ্ছাসেবী সংগঠন, সহযোগি সংগঠন ও কিছু পরিচিত ব্যাক্তির মাধ্যমে শিশুদের কাছে নতুন সোয়েটার পৌছে দিয়েছেন। হাসি ফুটিয়েছেন ওই সকল অসহায় দুস্থ শিশুদের মুখে।সমাজের অসহায়, গরিব দুস্থ মানুষগুলো এই নিষ্ঠুর অবিচারি শীতে কতই না কষ্ট পাচ্ছেন? সেই মানুষগুলোর জন্য কারও মাথা ব্যথার প্রয়োজন নেই! কেনই বা থাকবে, ওরা সমাজের কে? আর মানবতা দিয়েই বা কী হবে? আপনে বাঁচলে বাপের নাম! এমনটাই মনে করেন এখন অনেকে।কিন্তু ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়ালের ছোট একটি উদ্যোগ জেলার দুস্থ পরিবারের ৩০ হাজার শিশুর মুখে হাসি ফুটিয়েছে। অসহায় দুস্থ ৩০ হাজার শিশুকে নতুন সোয়েটার দিয়ে তিনি একদিকে নতুন কাপড় পাওয়ার আনন্দ দিয়েছেন অন্যদিকে শীত নিবারণ করেছেন। তার এই উদ্যেগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন জেলার অনেক মানুষ। বর্তমানে সোয়েটার বিতরণের ছবি সকলের ফেসবুক জুরে রয়েছে। কমেন্টের মাধ্যমে ধন্যবাদ ও দোয়া করছেন অনেকে জেলা প্রশাসকের জন্য। ৩০ হাজার সোয়েটার জেলা প্রশাসক ৫টি উপজেলা, প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ঠাকুরগাঁও জেলা শাখা, নব জাগ্রত ফাউন্ডেশন, জেলার বিভিন্ন সাংবাদিক, বিভিন্ন সংগঠন, জেলা প্রশাসকের পরিচিত মানুষের সহযোগিতায় দুস্থ অসহায় শিশুদের মাঝে বিতরণ করেন।প্রবিণ সাংবাদিক আব্দুল লতিফ বলেন, জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল ঠাকুরগাঁওয়ের মানুষকে মানবতার শিক্ষা দিচ্ছেন প্রতিনিয়ত। তার ভালো ভালো কাজ গুলো দেখে আমাদের সন্তানেরা ভালো শিক্ষা গ্রহন করছে। তার ছোট ছোট উদ্যেগগুলো সমাজ পরিবর্তনে ভূমিকা রাখছে।ঠাকুরগাঁও মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, সমাজ পরির্বতনের জন্য আমাদের সকলের একত্রিত হয়ে কাজ করা উচিৎ। আমরা যৌথ ভাবে চেষ্টা করলে সমাজের মানুষগুলো ভালো থাকবে। জেলা প্রশাসক ঠাকুরগাঁওয়ের মানুষকে মানবতার শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছেন। আমাদের সকলের প্রয়োজন জেলা প্রশাসককে সহযোগিতা করা। ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল বলেন, আমরা সমাজের প্রতিটি মানুষ যদি ছোট ছোট উদ্যেগ গ্রহন করি দুস্থ ও অসহায় মানুষ গুলোর জন্য, তাহলে ক্ষুধা, দারিদ্র মুক্ত সমাজ ও দেশ গড়তে বেশিদিন সময় লাগবে না আমাদের। আসুন না আমরা শীর্তাত অসহায় মানুষ গুলোর পাশে গিয়ে দাড়াই। সমাজকে বদলানোর অঙ্গিকার নিয়ে সকলে একত্রিত হয়ে আমাদের সমাজ ও দেশটাকে সুন্দর করে গড়ে তুলি।

2 Attachments