ঢাকা ০৮:২৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশে ৮৮ ভাগ মানুষ নিরাপদ পানির আওতায় : এলজিআরডিমন্ত্রী

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় (এলজিআরডি) মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন জাতিসংঘে কমিউনিটি ভিত্তিক পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা বিষয়ে বাংলাদেশের সাফল্য তুলে ধরে বলেছেন, সরকারের ব্যাপক প্রচার ও পদক্ষেপের ফলে উন্মুক্ত স্থানে পয়ঃনিষ্কাশনের হার মাত্র ১ শতাংশে নেমে এসেছে। বাংলাদেশে ৮৮ ভাগ মানুষ এখন নিরাপদ পানির আওতায় এসেছে।
স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে জাতিসংঘের হাই-লেভেল পলিটিক্যাল ফোরামের সভায় বাংলাদেশ ডেটা বিপ্লব ও পয়ঃনিষ্কাশন বিষয়ক দুটি সাইড ইভেন্টে উদ্বোধন ও সমাপনী বক্তব্য দেন এলজিআরডি মন্ত্রী।
গত ৯ জুলাই থেকে শুরু হওয়া ‘ডেটা বিপ্লবে পিছনে পড়ে থাকবে না কেউই’ এবং ‘পয়ঃনিষ্কাশনে অংশগ্রহণমূলক দৃষ্টিভঙ্গি : বাংলাদেশ থেকে শেখা’শীর্ষক সাইড ইভেন্ট দুটিতে জাতিসংঘের সদস্যরাষ্ট্রসমূহ, থিংঙ্কট্যাংক, নীতিনির্ধারক, বিষয়বিশেষজ্ঞ ও গবেষকসহ আন্তর্জাতিক অঙ্গণের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।
বাংলাদেশে এসডিজি বাস্তবায়ন বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ এবং জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন ইভেন্ট দুটির মডারেটর ছিলেন। বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের মধ্যে ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান, স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর এমিরেটাস ড. ফিরোজ আহমেদ, ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী তাকসিম এ খান, গণস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মো. রাশিদুল হক।
‘পয়ঃনিষ্কাশনে অংশগ্রহণমূলক দৃষ্টিভঙ্গি : বাংলাদেশ থেকে শেখা’ বিষয়ক সাইড ইভেন্টে দেওয়া বক্তৃতায় স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এসডিজি-৬ বাস্তবায়নে বাংলাদেশ যথেষ্ট সফলতা অর্জন করেছে মর্মে উল্লেখ করেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাস্তচ্যুত রোহিঙ্গাদের মানবিক আশ্রয় প্রদান করেছেন উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পসমূহে নিরাপদ পানি সরবরাহ ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা বাস্তবায়ন আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ হলেও আমরা তা করতে পেরেছি। এমন একটি ইভেন্টের সহআয়োজক হওয়ার জন্য তিনি জাতিসংঘের ইনস্টিটিউট ফর ট্রেনিং এন্ড রিসার্চকে ধন্যবাদ জানান।
ইউনিটারের এক্সিকিউটিভ এডিটর নিখিল শেঠ বলেন, এমডিজির সফল বাস্তবায়ন শেষে এসডিজি বাস্তবায়নেও বাংলাদেশ দ্রুততার সঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছে। আজ বাংলাদেশ শুধু তার সফল্যের কাহিনীগুলোই তুলে ধরেনি, ২০২১ সালে বাংলাদেশ দেখতে কেমন হবে তা স্পষ্টই দেখা যাচ্ছে এর রূপকল্প বাস্তবায়নের ক্রমধারা দেখে। খুব কম দেশই এত অল্প সময়ে তার জনগণের জন্য এমন সাফল্য রচনা করতে পেরেছে।
বাংলাদেশে এসডিজি বাস্তবায়নের মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ডেটা রেভ্যূলেশনের মাধ্যমে এজেন্ডা ২০৩০ এর মূল মন্ত্র বাস্তবায়নার্থে কার্যকর ও গতিশীল উন্নয়ন প্রক্রিয়া প্রতিষ্ঠা করতে আমাদেরকে অবশ্যই পাঁচটি ক্ষেত্রে রূপান্তর ঘটাতে হবে।
সাইড ইভেন্টটিতে আরও বক্তব্য দেন জাতিসংঘের ইকোনমিক ও স্যোসাল অ্যাফেয়ার্স বিভাগের পরিচালক স্টেফান স্কুইনফেস্ট, ইউএনডিপির উপ-পরিচালক ডগলাস কিহ্, নরওয়ের পরিসংখ্যান বিভাগের সিনিয়র অ্যাডভাইজর লাইভ মারগ্রেথ রগনরাদ, ইউএন গ্লোবাল পালস্-এর পরিচালক রবার্ট ক্রিকপ্যাট্রিক, এয়ারবিএনবি’র এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রধান থাও নাগুয়েন, বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র ইকোনমিস্ট ওমর সিরাজউদ্দিন, এটুআইয়ের পলিসি অ্যাডভাইজর আনির চৌধুরী।
Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

বাংলাদেশে ৮৮ ভাগ মানুষ নিরাপদ পানির আওতায় : এলজিআরডিমন্ত্রী

আপডেট টাইম ১২:৪৫:২৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৪ জুলাই ২০১৮
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় (এলজিআরডি) মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন জাতিসংঘে কমিউনিটি ভিত্তিক পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা বিষয়ে বাংলাদেশের সাফল্য তুলে ধরে বলেছেন, সরকারের ব্যাপক প্রচার ও পদক্ষেপের ফলে উন্মুক্ত স্থানে পয়ঃনিষ্কাশনের হার মাত্র ১ শতাংশে নেমে এসেছে। বাংলাদেশে ৮৮ ভাগ মানুষ এখন নিরাপদ পানির আওতায় এসেছে।
স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে জাতিসংঘের হাই-লেভেল পলিটিক্যাল ফোরামের সভায় বাংলাদেশ ডেটা বিপ্লব ও পয়ঃনিষ্কাশন বিষয়ক দুটি সাইড ইভেন্টে উদ্বোধন ও সমাপনী বক্তব্য দেন এলজিআরডি মন্ত্রী।
গত ৯ জুলাই থেকে শুরু হওয়া ‘ডেটা বিপ্লবে পিছনে পড়ে থাকবে না কেউই’ এবং ‘পয়ঃনিষ্কাশনে অংশগ্রহণমূলক দৃষ্টিভঙ্গি : বাংলাদেশ থেকে শেখা’শীর্ষক সাইড ইভেন্ট দুটিতে জাতিসংঘের সদস্যরাষ্ট্রসমূহ, থিংঙ্কট্যাংক, নীতিনির্ধারক, বিষয়বিশেষজ্ঞ ও গবেষকসহ আন্তর্জাতিক অঙ্গণের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।
বাংলাদেশে এসডিজি বাস্তবায়ন বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ এবং জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন ইভেন্ট দুটির মডারেটর ছিলেন। বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের মধ্যে ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান, স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর এমিরেটাস ড. ফিরোজ আহমেদ, ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী তাকসিম এ খান, গণস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মো. রাশিদুল হক।
‘পয়ঃনিষ্কাশনে অংশগ্রহণমূলক দৃষ্টিভঙ্গি : বাংলাদেশ থেকে শেখা’ বিষয়ক সাইড ইভেন্টে দেওয়া বক্তৃতায় স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এসডিজি-৬ বাস্তবায়নে বাংলাদেশ যথেষ্ট সফলতা অর্জন করেছে মর্মে উল্লেখ করেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাস্তচ্যুত রোহিঙ্গাদের মানবিক আশ্রয় প্রদান করেছেন উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পসমূহে নিরাপদ পানি সরবরাহ ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা বাস্তবায়ন আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ হলেও আমরা তা করতে পেরেছি। এমন একটি ইভেন্টের সহআয়োজক হওয়ার জন্য তিনি জাতিসংঘের ইনস্টিটিউট ফর ট্রেনিং এন্ড রিসার্চকে ধন্যবাদ জানান।
ইউনিটারের এক্সিকিউটিভ এডিটর নিখিল শেঠ বলেন, এমডিজির সফল বাস্তবায়ন শেষে এসডিজি বাস্তবায়নেও বাংলাদেশ দ্রুততার সঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছে। আজ বাংলাদেশ শুধু তার সফল্যের কাহিনীগুলোই তুলে ধরেনি, ২০২১ সালে বাংলাদেশ দেখতে কেমন হবে তা স্পষ্টই দেখা যাচ্ছে এর রূপকল্প বাস্তবায়নের ক্রমধারা দেখে। খুব কম দেশই এত অল্প সময়ে তার জনগণের জন্য এমন সাফল্য রচনা করতে পেরেছে।
বাংলাদেশে এসডিজি বাস্তবায়নের মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ডেটা রেভ্যূলেশনের মাধ্যমে এজেন্ডা ২০৩০ এর মূল মন্ত্র বাস্তবায়নার্থে কার্যকর ও গতিশীল উন্নয়ন প্রক্রিয়া প্রতিষ্ঠা করতে আমাদেরকে অবশ্যই পাঁচটি ক্ষেত্রে রূপান্তর ঘটাতে হবে।
সাইড ইভেন্টটিতে আরও বক্তব্য দেন জাতিসংঘের ইকোনমিক ও স্যোসাল অ্যাফেয়ার্স বিভাগের পরিচালক স্টেফান স্কুইনফেস্ট, ইউএনডিপির উপ-পরিচালক ডগলাস কিহ্, নরওয়ের পরিসংখ্যান বিভাগের সিনিয়র অ্যাডভাইজর লাইভ মারগ্রেথ রগনরাদ, ইউএন গ্লোবাল পালস্-এর পরিচালক রবার্ট ক্রিকপ্যাট্রিক, এয়ারবিএনবি’র এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রধান থাও নাগুয়েন, বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র ইকোনমিস্ট ওমর সিরাজউদ্দিন, এটুআইয়ের পলিসি অ্যাডভাইজর আনির চৌধুরী।