ঢাকা ০৫:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
আগামীতে আইসিটি সেক্টরে ১০ লক্ষ কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হবে ………….ঠাকুরগাঁওয়ে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পীরগঞ্জে বিদায় সংবর্ধনা ও দায়িত্বভার গ্রহণ শেখ সমশের আলী রোগীদের প্রতি অবহেলা কোনভাবেই সহ্য করা হবেনা- পীরগঞ্জে ২০ শয্যাবিশিষ্ট ডায়াবেটিস এন্ড জেনারেল হাসপাতালের উদ্বোধনী বক্তৃতায় স্বাস্থ্য মন্ত্রী পীরগঞ্জে ২শ’ পিস টার্পেন্টাডল সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক পীরগঞ্জে ফেন্সিডিল ও ইনজেকশন উদ্ধার : গ্রেফতার— ২ পীরগঞ্জে টার্পেন্টাডল ট্যাবলেট সহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক ডাচ বাংলা ব্যাংকের প্রতিনিধিকে মারপিট করে ৯ লক্ষ টাকা ছিনতাই বাংলাদেশে বিনিয়োগের এখন উপযুক্ত সময়: চীনা ব্যবসায়ীদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী ঠাকুরগাঁওয়ে পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু খালেদা জিয়ার জীবন হুমকির মুখে: মির্জা ফখরুল

আজ ৩ ডিসেম্বর ঠাকুরগাঁও হানাদার মুক্ত দিবস

আজম রেহমান,সারাদিন ডেস্ক:: আজ ৩ ডিসেম্বর, ঠাকুরগাঁও হানাদার মুক্ত দিবস। নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে ঠাকুরগাঁও হানাদার মুক্ত দিবস পালন করা হয়েছে। জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ও উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর যৌথ আয়োজনে সোমবার সকালে সাধারণ পাঠাগার চত্বর থেকে একটি মুক্তি শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদিক্ষণ করে। পরে একই জায়গায় এসে শেষ হয় এবং সেখানে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক বীরমুক্তিযোদ্ধা আকবর আলীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, ঠাকুরগাঁওয়ে জেলা প্রশাসক ড. কেএম কামরুজ্জামান সেলিম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল আসাদ মো মাহফুজুল ইসলাম, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার বদরুদ্দোজা বদর, জেলা উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি সেতারা বেগম, বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ঠাকুরগাঁও স্বাধীন একটি জায়গা। মুক্তিযোদ্ধারা তাদের রক্তের বিনিময়ে ঠাকুরগাঁও জেলা স্বাধীন করে বিজয় ছিনিয়ে আনে। তবে এ জেলায় এখনো অনেক রাজাকার বসবাস করছে এবং প্রকাশ্যে ঘুরছে। এসব রাজাকারদের বিচারের দাবি জানানো হয়।

উল্লেখ্য, ঠাকুরগাঁও মহকুমা ছিল ৬ নম্বর সেক্টরের অন্তর্ভুক্ত। কমান্ডার ছিলেন পাক বাহিনীর স্কোয়াড্রেন লিডার খাদেমুল বাশার। সমগ্র সেক্টরে ১ হাজার ১২০টির মত গেরিলা বেইস গড়ে তোলা হয়। ৮ মের আগ পর্যন্ত সুবেদার কাজিম উদ্দিন এর দায়িত্বে ছিলেন। ৯ মে ক্যাপ্টেন নজরুল, কাজিম উদ্দিনের কাছ থেকে দায়িত্ব বুঝে নেন। জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে স্কোয়াড্রেন সদরুদ্দিন ও ১৭ জুলাই ক্যাপ্টেন শাহারিয়া সাব সেক্টরের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।                              

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতে পাকসেনারা ঝাঁপিয়ে পড়ে বাঙালির ওপর। তাদের প্রতিরোধ করতে সারাদেশসহ ঠাকুরগাঁওবাসীও গড়ে তুলেছিল দুর্বার আন্দোলন। ২৭ মার্চ ঠাকুরগাঁওয়ে পাক বাহিনীর হাতে প্রথম শহীদ হয় রিক্সা চালক মোহাম্মদ আলী। পরদিন ২৮ মার্চ ‘জয় বাংলা’ ধ্বনি উচ্চারণ করায় শিশু নরেশ চৌহানকে গুলি করে হত্যা করে পাকবাহিনীর সদস্যরা। সেময় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ফজলুল করিমের নির্দেশে ১০টি প্রশিক্ষণ ক্যাম্প চালু করা হয়। পাকিস্তানী বাহিনীকে ঠাকুরগাঁওয়ে ঢুকতে না দেওয়ার জন্য ২০টি জায়গা নির্ধারন করে প্রতিরোধের ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়। ১০ এপ্রিল থেকে ঠাকুরগাঁওয়ের সঙ্গে অন্যান্য মহকুমার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সৈয়দপুরে পাকিস্তানী সেনারা শক্ত ঘাটি করে এগিয়ে আসতে শুরু করে। অত্যাধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত পাক সেনাদের সঙ্গে টিকে থাকা অসম্ভব হয়ে পরে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের। তখন সংগ্রাম কমিটি ১৩ এপ্রিল তাদের কন্ট্রোল রুম ও ২০টি প্রতিরোধ ক্যাম্প তুলে নিয়ে সীমান্তে অবস্থান নেয়।

১৫ এপ্রিল আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত পাক বাহিনীর দখলে চলে যায় ঠাকুরগাঁও। পাক সেনারা ১০টি ট্রাক ও ৮টি জিপে করে মুহুর্মুহু সেল বর্ষণ করতে করতে ঠাকুরগাঁও শহরে ঢুকে পড়ে। পাশ্ববর্তী পঞ্চগড় থানা’র তেতুলিয়াকে কেন্দ্র করে ১৫০ বর্গমাইলের ১টি মুক্তাঞ্চল গড়ে উঠে। সেখানে পাক বাহিনী কখনও ঢুকতে পারেনি। সেখান থেকেই পরিচালিত হয় চুড়ান্ত লড়াই। শুরু হয় হত্যা, ধর্ষন, নির্যাতন, লুটপাট আর বাড়ি ঘরে অগ্নিসংযোগের ঘটনা।

আওয়ামীলীগের ঘাটি বলে পরিচিত ঠাকুরগাঁও রোড ইসলাম নগর থেকে ছাত্র নেতা আহাম্মদ আলী, সহ ৭ জনকে হানাদার বাহিনী ঠাকুরগাঁও ক্যাম্পে আটক করে রাখে। পর বেয়নেট চার্জ করে হত্যার পর তাদের লাশ শহরের টাঙ্গন ব্রিজের পশ্চিম পার্শ্বে গণকবর দেয়। এভাবে তারা রুহিয়া রামনাথ হাঠ, ফারাবাড়ী, রোড, ভাতারমারি ফার্ম, ভোমরাদহ ও বালিয়াডাঙ্গী এলাকায় গনহত্যা চালায়।

সবচেয়ে বড় বর্বরোচিত গণহত্যাকাণ্ড চালায় সদর উপজেলার জাঠিভাঙ্গা এলাকায়। ২৩ এপ্রিল সেখানে পাক হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা ২ হাজার ৬শ জন নারী-পুরুষ ও শিশুকে পাথরাজ নদীর তীরে গুলি করে হত্যা করে। স্বামী হারিয়ে সে দিনের বিভৎস ক্ষত নিয়ে এখনও বেচে আছে ৪ শতাধিক বিধবা।

দ্বিতীয় গণহত্যা চালানো হয় রানীশংকৈল উপজেলার খুনিয়াদিঘীর পাড়ে। স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় পাকবাহিনী হরিপুর ও রানীশংকৈল উপজেলার নিরিহ লোকজনকেও ধরে নিয়ে যেতো ওই পুকুরের পাড়ে। সেখানে একটি শিমূল গাছে সাথে হাতে পায়ে লোহার পেরেক গেঁথে দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের খবর জানতে বর্বর নির্যাতন চালাতো লোকজনের উপর। তারপর লাইন করে দাঁড় করিয়ে সাধারন মানুষকে পাখির মত গুলি করে হত্যা করা হতো। দিনের পর দিন গণহত্যায় মানুষের রক্তে এক সময়  লাল হয়ে উঠে ওই পুকুরের পানি। তাই পরবর্তিতে এ পুকুর খুনিয়াদিঘি নামে পরিচিত হয়ে উঠে।

নভেম্বর মাসের ৩য় সপ্তাহ থেকে মুক্তিযোদ্ধারা ব্যাপক অভিযান চালায়। ২১ নভেম্বর হতে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য যুদ্ধ হয় বালিয়াডাঙ্গী, পীরগঞ্জ, রানীশংকৈল ও হরিপুর থানা অঞ্চলে। এ যুদ্ধে বেশির ভাগ ফলাফল মুক্তি বাহিনীর অনুকুলে আসে।

২ ডিসেম্বর সারারাত প্রচন্ড গোলাগুলির পর শত্র“বাহিনী ঠাকুরগাঁও থেকে পিছু হটে। ৩ ডিসেম্বর ভোর রাতে শত্রুমুক্ত হয় ঠাকুরগাঁও। ওই রাতেই মুক্তি বাহিনী ও সর্বস্তরের জনগন মিছিল সহ ঠাকুরগাঁও শহরে প্রবেশ করে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে দেয় এবং লাল সবুজের পতাকা হাতে নিয়ে বিজয় উল্ল­াস করতে থাকে সর্বস্তরের মানুষ।

3 Attachments

Tag :

ভিডিও

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

Azam Rehman

জনপ্রিয় সংবাদ

আগামীতে আইসিটি সেক্টরে ১০ লক্ষ কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হবে ………….ঠাকুরগাঁওয়ে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

আজ ৩ ডিসেম্বর ঠাকুরগাঁও হানাদার মুক্ত দিবস

আপডেট টাইম ০৬:৩৯:১৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩ ডিসেম্বর ২০১৮

আজম রেহমান,সারাদিন ডেস্ক:: আজ ৩ ডিসেম্বর, ঠাকুরগাঁও হানাদার মুক্ত দিবস। নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে ঠাকুরগাঁও হানাদার মুক্ত দিবস পালন করা হয়েছে। জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ও উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর যৌথ আয়োজনে সোমবার সকালে সাধারণ পাঠাগার চত্বর থেকে একটি মুক্তি শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদিক্ষণ করে। পরে একই জায়গায় এসে শেষ হয় এবং সেখানে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক বীরমুক্তিযোদ্ধা আকবর আলীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, ঠাকুরগাঁওয়ে জেলা প্রশাসক ড. কেএম কামরুজ্জামান সেলিম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল আসাদ মো মাহফুজুল ইসলাম, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার বদরুদ্দোজা বদর, জেলা উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি সেতারা বেগম, বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ঠাকুরগাঁও স্বাধীন একটি জায়গা। মুক্তিযোদ্ধারা তাদের রক্তের বিনিময়ে ঠাকুরগাঁও জেলা স্বাধীন করে বিজয় ছিনিয়ে আনে। তবে এ জেলায় এখনো অনেক রাজাকার বসবাস করছে এবং প্রকাশ্যে ঘুরছে। এসব রাজাকারদের বিচারের দাবি জানানো হয়।

উল্লেখ্য, ঠাকুরগাঁও মহকুমা ছিল ৬ নম্বর সেক্টরের অন্তর্ভুক্ত। কমান্ডার ছিলেন পাক বাহিনীর স্কোয়াড্রেন লিডার খাদেমুল বাশার। সমগ্র সেক্টরে ১ হাজার ১২০টির মত গেরিলা বেইস গড়ে তোলা হয়। ৮ মের আগ পর্যন্ত সুবেদার কাজিম উদ্দিন এর দায়িত্বে ছিলেন। ৯ মে ক্যাপ্টেন নজরুল, কাজিম উদ্দিনের কাছ থেকে দায়িত্ব বুঝে নেন। জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে স্কোয়াড্রেন সদরুদ্দিন ও ১৭ জুলাই ক্যাপ্টেন শাহারিয়া সাব সেক্টরের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।                              

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতে পাকসেনারা ঝাঁপিয়ে পড়ে বাঙালির ওপর। তাদের প্রতিরোধ করতে সারাদেশসহ ঠাকুরগাঁওবাসীও গড়ে তুলেছিল দুর্বার আন্দোলন। ২৭ মার্চ ঠাকুরগাঁওয়ে পাক বাহিনীর হাতে প্রথম শহীদ হয় রিক্সা চালক মোহাম্মদ আলী। পরদিন ২৮ মার্চ ‘জয় বাংলা’ ধ্বনি উচ্চারণ করায় শিশু নরেশ চৌহানকে গুলি করে হত্যা করে পাকবাহিনীর সদস্যরা। সেময় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ফজলুল করিমের নির্দেশে ১০টি প্রশিক্ষণ ক্যাম্প চালু করা হয়। পাকিস্তানী বাহিনীকে ঠাকুরগাঁওয়ে ঢুকতে না দেওয়ার জন্য ২০টি জায়গা নির্ধারন করে প্রতিরোধের ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়। ১০ এপ্রিল থেকে ঠাকুরগাঁওয়ের সঙ্গে অন্যান্য মহকুমার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সৈয়দপুরে পাকিস্তানী সেনারা শক্ত ঘাটি করে এগিয়ে আসতে শুরু করে। অত্যাধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত পাক সেনাদের সঙ্গে টিকে থাকা অসম্ভব হয়ে পরে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের। তখন সংগ্রাম কমিটি ১৩ এপ্রিল তাদের কন্ট্রোল রুম ও ২০টি প্রতিরোধ ক্যাম্প তুলে নিয়ে সীমান্তে অবস্থান নেয়।

১৫ এপ্রিল আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত পাক বাহিনীর দখলে চলে যায় ঠাকুরগাঁও। পাক সেনারা ১০টি ট্রাক ও ৮টি জিপে করে মুহুর্মুহু সেল বর্ষণ করতে করতে ঠাকুরগাঁও শহরে ঢুকে পড়ে। পাশ্ববর্তী পঞ্চগড় থানা’র তেতুলিয়াকে কেন্দ্র করে ১৫০ বর্গমাইলের ১টি মুক্তাঞ্চল গড়ে উঠে। সেখানে পাক বাহিনী কখনও ঢুকতে পারেনি। সেখান থেকেই পরিচালিত হয় চুড়ান্ত লড়াই। শুরু হয় হত্যা, ধর্ষন, নির্যাতন, লুটপাট আর বাড়ি ঘরে অগ্নিসংযোগের ঘটনা।

আওয়ামীলীগের ঘাটি বলে পরিচিত ঠাকুরগাঁও রোড ইসলাম নগর থেকে ছাত্র নেতা আহাম্মদ আলী, সহ ৭ জনকে হানাদার বাহিনী ঠাকুরগাঁও ক্যাম্পে আটক করে রাখে। পর বেয়নেট চার্জ করে হত্যার পর তাদের লাশ শহরের টাঙ্গন ব্রিজের পশ্চিম পার্শ্বে গণকবর দেয়। এভাবে তারা রুহিয়া রামনাথ হাঠ, ফারাবাড়ী, রোড, ভাতারমারি ফার্ম, ভোমরাদহ ও বালিয়াডাঙ্গী এলাকায় গনহত্যা চালায়।

সবচেয়ে বড় বর্বরোচিত গণহত্যাকাণ্ড চালায় সদর উপজেলার জাঠিভাঙ্গা এলাকায়। ২৩ এপ্রিল সেখানে পাক হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা ২ হাজার ৬শ জন নারী-পুরুষ ও শিশুকে পাথরাজ নদীর তীরে গুলি করে হত্যা করে। স্বামী হারিয়ে সে দিনের বিভৎস ক্ষত নিয়ে এখনও বেচে আছে ৪ শতাধিক বিধবা।

দ্বিতীয় গণহত্যা চালানো হয় রানীশংকৈল উপজেলার খুনিয়াদিঘীর পাড়ে। স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় পাকবাহিনী হরিপুর ও রানীশংকৈল উপজেলার নিরিহ লোকজনকেও ধরে নিয়ে যেতো ওই পুকুরের পাড়ে। সেখানে একটি শিমূল গাছে সাথে হাতে পায়ে লোহার পেরেক গেঁথে দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের খবর জানতে বর্বর নির্যাতন চালাতো লোকজনের উপর। তারপর লাইন করে দাঁড় করিয়ে সাধারন মানুষকে পাখির মত গুলি করে হত্যা করা হতো। দিনের পর দিন গণহত্যায় মানুষের রক্তে এক সময়  লাল হয়ে উঠে ওই পুকুরের পানি। তাই পরবর্তিতে এ পুকুর খুনিয়াদিঘি নামে পরিচিত হয়ে উঠে।

নভেম্বর মাসের ৩য় সপ্তাহ থেকে মুক্তিযোদ্ধারা ব্যাপক অভিযান চালায়। ২১ নভেম্বর হতে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য যুদ্ধ হয় বালিয়াডাঙ্গী, পীরগঞ্জ, রানীশংকৈল ও হরিপুর থানা অঞ্চলে। এ যুদ্ধে বেশির ভাগ ফলাফল মুক্তি বাহিনীর অনুকুলে আসে।

২ ডিসেম্বর সারারাত প্রচন্ড গোলাগুলির পর শত্র“বাহিনী ঠাকুরগাঁও থেকে পিছু হটে। ৩ ডিসেম্বর ভোর রাতে শত্রুমুক্ত হয় ঠাকুরগাঁও। ওই রাতেই মুক্তি বাহিনী ও সর্বস্তরের জনগন মিছিল সহ ঠাকুরগাঁও শহরে প্রবেশ করে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে দেয় এবং লাল সবুজের পতাকা হাতে নিয়ে বিজয় উল্ল­াস করতে থাকে সর্বস্তরের মানুষ।

3 Attachments